Phulbari Aman Chash-29.07.2015ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:শ্রাবণ মাসের প্রথম দিকে সামান্য কিছু বৃষ্টিপাত হলেও পক্ষকাল ব্যাপি ফুলবাড়ীতে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ভরা বর্ষা মৌসুমে চলছে ম্মরণকালের খরা।

ফুলবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন মাঠের নিচু জমিতে বর্ষার শুরুতেই রোপা আমন চারা লাগানোর কাজ কৃষকেরা শেষ করলেও উঁচু ও ভিটামাটি জমিতে পর্যাপ্ত পানির অভাবে রোপা আমন চারা লাগাতে পারেনি।

গত কয়েক সপ্তাহের একটানা খরার ফলে ইতিমধ্যে নিচু জমির আমন চারাও হুমকির মুখে পড়েছে।

অনেক মাঠের মাটি ফেটে চৌচির হয়ে গেছে।

তবে বিভিন্ন মাঠে কৃষকেরা সেচ দিয়ে আবাদ বাচিয়ে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

কিন্তু উচু ও ভিটামাটি জমিতে রোপা আমন চাষ করতে না পেরে কৃষকেরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।

সকাল থেকেই প্রচন্ড রোদ শুরু চচ্ছে এবং চলছে বিকেল পর্যন্ত। তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে গরমে মানুষজন অতিষ্ট হয়ে উঠেছেন।

বুধবার ফুলবাড়ীতে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৫ ডিগ্রী সেলসিয়িাস।

চকচকা গ্রামের আদর্শ কৃষক অধ্যক্ষ জিল্লুর রহমান জানান, ভরা বর্ষায় এমন খরা ইতিপূর্বে দেখা যায়নি।

উচু জমির আমন চারা একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে এবং নিচু জমির আমন চারাও নষ্টের উপক্রম হয়েছে বলে তিনি জানান।

একই কথা জানালেন, আলাদীপুর ইউনিয়নের ভিমলপুর গ্রামের আলহাজ্ব মনছুর আলী মন্ডল, আকবর আলী, সুবাস চন্দ্র ও আরও অনেকে।

ফুলবাড়ী কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এবার ফুলবাড়ী উপজেলায় ১৭ হাজার ৪’শ ৫০হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

ইতিমধ্যে ৯০ভাগ জমিতে রোপান আমন চারা লাগানোর কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে কৃষি অফিস দাবী জানালেও বাস্তব অবস্থায় মাঠের চিত্র দেখে তা মনে হয় না।

বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে প্রায় ৩০ভাগ জমি এখনো অনাবাদি রয়ে গেছে, তার উপর একটানা পক্ষকাল ব্যাপি খরার ফলে রোপা আমন চারা লাগানো জমিও হুমকির মুখে পরেছে।

ফলে এবার ফুলবাড়ীতে আমন আবাদ শুরুতে বাধা গ্রস্থ হচ্ছে বলে অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে।

এদিকে খরার ফলে ছোট ছোট খাল বিলের পানি গরম হয়ে মাছ মরে যাচ্ছে, মাঠের জমিতেও মাছ মরে থাকছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য