ballo-b-doli20150724074400ডিমলা, নীলফামারী সংবাদাতাঃ  নীলফামারীর ডিমলায় শুক্রবার বাল্যবিবাহের অনুষ্ঠান পন্ড করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম।

ডিমলা যুবফ্রামের নেতৃবৃন্দ বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করলে। দুপুরে বিয়ে বাড়িতে সকল আয়োজন শেষে শুধু সানাই বাজার অপেক্ষা। ঠিক সেই মুহূর্তে হাজির হলো ইউএনও। শুক্রবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটে নীলফামারীর ডিমলা সদর ইউনিয়নের আদর্শপাড়া গ্রামে।

জানা যায়, ডিমলা সদর ইউনিয়নের আদর্শপাড়া গ্রামের হরিদাস চন্দ্র রায়ের কন্যা ও ডিমলা আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী ডলি রানি (১৪ বছর ৬মাস) সাথে ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ি নিমজখানা গ্রামের অধীর চন্দ্র রায়ের ছেলে রতন রায় (১৭) বিয়ের আয়োজন করা হয়।

ডলি রানি জন্ম তারিখ ২০০০ সালের ২০ নভেম্বর হলেও ডিমলা সদর ইউপি চেয়ারম্যান রফিজুল ইসলাম জন্মনিবন্ধন সনদপত্রে মেয়েটির বয়স ১৯ বছর ৩মাস করে দিয়েছে বলে ডলির পিতা হরিদাস।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে হিন্দু নিকাহ রেজিষ্টার বিপুল চন্দ্র রায় মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়ে গোপনে ডলির বিয়ে রেজিষ্ট্রি করে দেয়। ডলি রানি জানায়, আমার বিয়ে রেজিষ্ট্রি হয়েছে বিয়ে বন্ধ করলে আপনার বলেন আমার কি হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম জানায়,  বিয়ের বয়ন ১৮ হওয়ার পূর্বে কোনো বিবাহ হবে না। যদি কেউ আইন অমান্য করে উপযুক্ত বয়স না হওয়া পয্যন্ত বিয়ে দেন।

তবে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনিসহ পুলিশের উপস্থিতিতে বিয়ের সমস্ত আয়োজন পন্ড করে দেন। তিনি বলেন গোপন বিয়ে দেওয়া হলে মোবাইল কোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্থা করা হবে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য