04-Padda patar Jolবিনোদন: মুক্তির আগে থেকেই পদ্ম পাতার জল নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। কিন্তু শেষ নাগাদ ২৬টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় ছবিটি। প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা কম হলেও ছবিটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, দর্শকের সাড়ায় তাঁরা অভিভূত। তবে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা আরও বেশি হলে অনেক দর্শক ছবিটি উপভোগ করতে পারতেন।

ঈদের দিন থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে ঘুরছেন পদ্ম পাতার জল-এর শিল্পী ও কলাকুশলীরা। ছবির নায়ক ইমন বলেন, এবারের ঈদ উদ্যাপনের বিশেষ অংশ ছিল প্রেক্ষাগৃহ ঘুরে বেড়ানো। তাঁর ভাষায়, ‘ঢাকার প্রেক্ষাগৃহে দর্শকের দারুণ উৎসাহ দেখেছি ছবিটি নিয়ে। যেখানেই গিয়েছি, সবাই তাঁদের ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন।’

প্রেক্ষাগৃহ ছাড়াও ছবিটি প্রদর্শিত হচ্ছে দেশের বিভিন্ন মঞ্চ ও মিলনায়তনে। ছবির চিত্রনাট্যকার লতিফুল ইসলাম জানান, যেসব স্থানে তাঁরা প্রেক্ষাগৃহ পাননি, সেসব স্থানে নিজ উদ্যোগে তাঁরা চলচ্চিত্রটি প্রদর্শন করছেন। নিজস্ব উদ্যোগে এসব প্রদর্শনী চলবে আগামীকাল ২৫ জুলাই পর্যন্ত। দর্শক-চাহিদা থাকলে এরপর এমন প্রদর্শনীর সময় বাড়াতে পারেন তাঁরা।

বলাকা সিনেমা হলের বাইরে দর্শকদের সঙ্গে মিম ও ইমননায়িকা মিমও ছিলেন ইমনের সফরসঙ্গী। তাঁরা জানিয়েছেন, আগামি সপ্তাহে ঢাকার বাইরের প্রেক্ষাগৃহগুলো ঘুরে দেখবেন। ইমন বলেন, ‘ঢাকার দর্শকদের থেকে ইতিবাচক সাড়া পেয়েছি। কিন্তু বৃষ্টির জন্য ঢাকার বাইরে এখনো যেতে পারিনি। দলবল নিয়ে শিগগিরই দেশের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে ছবিটি দেখব।’

এদিকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিঞা আলাউদ্দিন জানিয়েছেন, ঈদে মুক্তি পাওয়া অন্য ছবিগুলোর তুলনায় অনেক কমসংখ্যক প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে পদ্ম পাতার জল। তবে তুলনামূলকভাবে সন্তোষজনক ব্যবসা করছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য