পীরগঞ্জ হাসপাতালঠাকুরগাঁও সংবাদাতাঃ ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পথ্য খাতে অর্থ বরাদ্দ না থাকায় ঠিকাদারের বিল বকেয়া পড়ায় গত দুই সপ্তাহ ধরে বন্ধ হয়ে গেছে খাদ্য সরবরাহ। ১ জুলাই থেকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীরা পাচ্ছেন না কোন ধরনের খাদ্য। এতে হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় রোগীরা পড়েছেন বিপাকে ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের নং-স্বাপকম/হাস-২/শয্যা-১/২০০২(অংশ-২)/৫৪ তারিখ ১৭/১/১১ সালে প্রশাসনিক অনুমোদন সাপেক্ষে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ৩১ থেকে ৫০ শয্যার কার্যক্রম চালু হয়। ২০১৪-১৫ অর্থ বছরের জুলাই/১৪ থেকে সেপ্টেম্বর/১৪ পর্যন্ত ৩ মাসের বিল পরিশোধ করা হয়।

পরবর্তীতে উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় অক্টোবর/১৪ থেকে জুন/১৫ পর্যন্ত ৯ মাসে অতিরিক্ত ১৯ শয্যার রোগীদের পথ্য সরবরাহের ৫ লাখ টাকা বিল বকেয়া পড়ায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি আর পথ্য সরবরাহ করবেন না বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবগত করেন। এরই প্রেক্ষিতে ১৫ জুন পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত একটি পত্রে ৩১ শয্যার অতিরিক্ত ১৯ শয্যার রোগীর পথ্যের বকেয়া বিল পরিশোধদে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছরে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কত শয্যা হাসপাতাল এর দিক নির্দেশনা চেয়ে সিভিল সার্জন ঠাকুরগাও বরাবরে  চিঠি দেয়।

এ চিঠির সূত্র ধরে উপরোক্ত বিষয়ে ব্যবস্থ্যা গ্রহনের জন্য ২১ জুন ঠাকুরগাও সিভিল সার্জেন স্বাস্থ্য মহাপরিচালক (ডিজি) ঢাকা বরাবরে পত্র দিয়েও কোন দিক নির্দেশনা না পাওয়ায় ১ জুলাই থেকে উন্নয়ন প্রকল্পের ১৯ শয্যার রোগীর পথ্য সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ জানান, চিঠি দিয়েও কোন লাভ হয়নি। উন্নয়ন খাতের ১৯ শয্যার রোগীর পথ্য সরবরাহ বন্ধের কথা স্বীকার করে আরো বলেন, ঠাকুরগাাঁও জেলা সদরের প্রবেশ দাড় হিসেবে পীরগঞ্জ একটি জনবহুল উপজেলা ।এখানে ৩ লক্ষাধিক লোকের বসবাস ।এ হাসপাতালে হরিপুর, রানীশংকৈল, বালিয়াডাংঙ্গি, দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ উপজেলার অধিকাংশ মানুষ চিকিৎসা নিতে এখানে ভর্তি হচ্ছেন। প্রতিদিনই কমপক্ষে ৭০-৮০ জন রোগী ভর্তি থাকেন। আর জেলার যে সব হাসপাতালে ১০-১৫ জন ভর্তি রোগী পাওয়া মুশকিল সে গুলোকে হাসপাতালকে ৫০ শয্যার সুবিধা দেয়া হচ্ছে। কিন্তু পীরগঞ্জ হাসপাতালটি ৫০ শয্যার অনুমোদন পেলেও অর্থ বরাদ্দের অনুমোদন নেই।

অপরদিকে পীরগঞ্জ হাসপাতালে পথ্য সরবরাহকারী আব্দুল আজিজ জানান,বকেয়া বিল পাওয়া যাবে কিনা তাই তিনি দুশ্চিন্তায় আছেন ।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য