Death মৃত্যু Hotta khun হত্যানীলফামারী সংবাদাতাঃ পৃথক দুই স্থানে নীলফামারীতে দু’জন বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। আজ মঙ্গলবার দুপুরে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার খাতা মধুপুর ইউনিয়নের খালিশা ধুলিয়াপাড়া এবং জলঢাকা উপজেলার উত্তর কাজীরহাট গ্রামে ওই দুই স্থানে বজ্রপাতের ঘটনায় মারা যান তারা।

অপরদিকে জেলার সৈয়দপুর উপজেলার চওড়া নদীতে ডুবে সুমী (১২) নামের এক স্কুলছাত্রী মারা গেছে। সুমী উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের ইউনিয়নের সিপাইগঞ্জ বাজার এলাকার ঠকপাড়ার আবদুল আজিজের মেয়ে। স্থানীয়রা জানান, দুপুরের দিকে ক্ষেতে নিড়ানী কালে বজ্রপাতের শিকার হন চরভোলা নাথ (৪৫) নামের একজন কৃষক। ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি।

সে শৌলমারী ইউনিয়নের সিংরিয়া সিবুরহাট বাহাদুর পাড়া গ্রামের মৃত চন্দন মোহনের ছেলে। এ ছাড়া সৈয়দপুর উপজেলার খাতা মধুপুর ইউনিয়নের খালিশা ধুলিয়া গ্রামে গরু নিয়ে বাহিরে যাওয়ার সময় বাড়ির পাশে বজ্রপাতের শিকার হয়ে মারা যান নুর নাহার বেগম (৪৫) নামের এক গৃহবধু। তিনিও ঘটনাস্থলেই মারা যান। নুর নাহার সেখানকার মৃত আবদুর রাজ্জাকের স্ত্রী।

সুমী ঘটনার দিন সহপাঠিদের নিয়ে বাড়ীর পাশে নদীর মাজারের ঘাটে গোসল করতে যায় সুমী। গোসল শেষে সহপাঠিরা নদীর তীরে উঠে এলেও সুমীকে কোথাও দেখতে না পেয়ে তার পরিবারকে খবর দেয়। এরপর গ্রামের লোকজন নদীতে খুঁজতে থাকে। বেলা তিনটার দিকে নদীর ভাটির দিকে ডাঙ্গীর ঘাট নামক স্থান থেকে সুমীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত সুমী সিপাইগঞ্জ উচ্চবিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী।

ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী জানান, নিহত নুর নাহার ছয় সন্তানের জননী ছিলেন। বজ্রপাতের সময় তার শরীরে থাকা শাড়ি ও মাথার চুল পুড়ে যায়।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য