পুলিশকুড়িগ্রাম সংবাদাতাঃ জমিজমা সংক্রান্ত এক মামলায় গ্রেফতার করে কুড়িগ্রাম ওয়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক রোবেল মন্ডলের উপর পুলিশি নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে রাজারহাট থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। বর্তমানে রোবেল মন্ডল গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজে চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। ৫ জুলাই মধ্যরাতে রাজারহাট থানা পুলিশ তাকে বাড়ী থেকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার দুপুরে রোবেল মন্ডলের স্ত্রী নাসরিন বেগম কুড়িগ্রামে কর্মরত সাংবাদিকদের নিকট এ অভিযোগ করেন।

নাসরিন বেগম দাবী করেন, অভিযোগকারী আরজুর সাথে রুবেল মন্ডলের কোন সম্পর্ক নেই। বরং শহিদুল ইসলাম আরজু আওয়ামীলীগের নাম ভাঙিয়ে কিছু লোকজন নিয়ে এলাকায় অরাজকতার সৃষ্টি করছে। ঘটনার সময় উপস্থিত না থাকার পরও হয়রাণীমূলকভাবে মামলায় জড়ানো হয় তার স্বামী রোবেল মন্ডলকে। রাজারহাট পুলিশ রোববার দিবাগত রাত ২টার সময় বাড়ী থেকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে থানায় এনে রোবেল মন্ডলের উপর পুলিশ শারিরীক ও মানষিক নির্যাতন করে। এক পর্যায়ে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে কুড়িগ্রাম সদর  হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে সোমবার রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে মরণাপন্ন অবস্থায় পুলিশ রোবেল মন্ডলের স্ত্রীর কাছে লিখিতভাবে কাগজ নিয়ে তার জিম্মায় রেখে চলে আসে।

এ ব্যাপারে মামলার বাদি শহিদুল ইসলাম আরজু জানান, রোবেল মন্ডলের পরিবারের সাথে যাত্রাপুরের এক লোকের ৬০ শতক জমি নিয়ে মামলা আছে। আমি ৫শ’ টাকা দিয়ে সেই জমির বায়না নিয়েছি। উক্ত জমির ধান দেখতে গেলে আসামীরা ফেরার পথে আমাকে মারধোর করে। এছড়াও ওই জমির জন্য ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করা হয়। এ জন্য রোবেল মন্ডলকে প্রধান আসামী করে হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই শাহীন জানান, মামলার ভিত্তিতে রোবেল মন্ডলকে গ্রেফতার করা হয়। সুচিকিৎসার জন্য তার স্ত্রীর জামিন আবেদনের প্রেক্ষিতে কোর্ট তাকে জামিন দেয়। বর্তমানে তদন্তকাজ চলছে। থানায় তাকে কোন প্রকার হয়রাণী কিংবা কোন নির্যাতন করা হয়নি।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য