24 Rapeচিরিরবন্দর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ভগ্নিপতি কর্তৃক শ্যালিকাকে অপহরণের পর মিথ্যে বিয়ের নামে ধর্ষণ ঘটনায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।    মামলা সূত্রে জানা গেছে, ৯ বছর পূর্বে উপজেলার পুনট্টি গ্রামের তেলিপাড়ার এন্তাজ মন্ডলের কন্যা রহিমা খাতুনের সঙ্গে ওই উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের আ. মান্নানের পুত্র নুর মোহাম্মদের (৩৫) পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবনে কলহের সৃষ্টি হয়। দাম্পত্য জীবনের কলহের যবনিকা টানতে  রহিমা ৪ বছর পূর্বে চাকুরির করার জন্য ঢাকায় পাড়ি জমায়। এ সুযোগে লম্পট, নারী লিপ্সু ভগ্নিপতি নুর মোহাম্মদের দৃষ্টি পড়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া আপন শ্যালিকার ওপর। শ্যালিকার মাদ্রাসায় যাতায়াতের সময় বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করতে থাকে ভগ্নিপতি। এক পর্যায়ে গত ২ মে মাদ্রাসা ছুটিরপর বাড়ি ফেরার পথে শ্যালিকাকে ভগ্নিপতি রাস্তা থেকে ফুসলিয়ে অপহরণ করে নিজ গৃহে নিয়ে যায়। ওই রাতেই ভগ্নিপতি নুর মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক (২৫) উকিল পিতা নিযুক্ত করে এবং স্থানীয় মৌলভী ইয়াকুব আলী (২০) কে দিয়ে শ্যালিকাকে মিথ্যে বিয়ে করে। ভগ্নিপতি নুর মোহাম্মদ দীর্ঘ দেড়মাস ধরে শ্যালিকার সঙ্গে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক শারিরীক সম্পর্ক চালাতে থাকে। এর এক পর্যায়ে গত ১৭ জুন সন্ধ্যায় লম্পট  ভগ্নিপতি নুর মোহাম্মদ শ্যালিকাকে তার বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় মেয়ের পিতা এন্তাজ মন্ডল বাদী হয়ে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। তিনি জানান, বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার জন্য গ্রাম্য মাতবররা উদ্যোগ নিলেও তা ভেস্তে যায়। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিছুর রহমান জানান, ভিকটিমের শারিরীক ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। এ পর্যন্ত কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি। তবে আসামী গ্রেফতারে পুলিশি জোর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য