লাশ হয়ে দেশে ফিরলো প্রবাসী জলিলডিমলা, নীলফামারী সংবাদাতাঃ প্রবাস হতে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার আবদুল জলিল ।
উপজেলার পূর্বছাতাই ইউনিয়নের ছাতনাই গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে আবদুল জলিল(৪০)। সামাজিক জীবনে একটু ভালো থাকার আশায় প্রায় ১০ বছর আগে পারি জমায় সু-দূর মালোশিয়ায়। সেখানে তিনি ফ্রি ভিসায় গিয়ে বিভিন্ন কম্পানীতে শ্রমিকের কাজ করেন। সেখান থেকে রোজগার করে বাড়ীতে টাকা পাঠাতেন জলিল। জলিলের পাঠানো টাকায় সংসারের অভাব ঘুচে গিয়ে বেশ ভালই চলছিলো সংসার। হটাৎ কালবৈশাখী ঝড়ের মতো একটি দূর্গটনায় জলিলের সকল স্বপ্নের সমাধী ঘটলো। গত ২৬ জুন শুক্রবার সকাল ৬ টায় মালোশিয়ার বসবাসরত বাসা হতে মোটরসাইকেল যোগে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে যাওয়ার পথে  মালোশিয়ার পেনবিএম জেলা শহরের কাছে পৌঁছলে বিপরীত থেকে আসা একটি প্রাইভেট কারের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পারিবারিক জীবনে জলিল দুই ছেলে সন্তানের জনক। বড় ছেলে রিয়াদ এর বয়স ৫ বৎসর ও ছোট ছেলে রিফাদের বয়স ৩ বৎসর। জলিলের স্ত্রী তাজমিন ফারিয়া খুকি একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। মঙ্গলবার জলিলের লাশ মালোশিয়া হতে বাংলাদেশ বিমান বন্দরে পৌছলে। বুধবার ভোরে নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার ছাতনাই কলোনি গ্রামে নীজ বাড়ীতে তার লাশ নিয়ে আসলে গ্রামে শুরু হয় শোকের মাতম। স্ত্রী খুকি হতবাক দৃষ্টিতে চেয়ে থেকে বারবার মূর্ছা যাচ্ছে। আর অবুঝ শিশু রিয়াদ রিফাত পিতার মৃত্যুর বিষয়টি অনুভব করতে না পারলেও ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে ডেকছেন পিতার নিথর মৃত দেহ। জলিলের লাশ বুধবার সকাল ১০ টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য