07-US-magazine-national_interesetআন্তর্জাতিক : ইরানের সশস্ত্র বাহিনীকে পরাজিত করার ক্ষমতা আমেরিকার নেই বলে একটি মার্কিন পত্রিকা মন্তব্য করেছে। মার্কিন সাময়িকী ‘ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট’-এর সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে এই মন্তব্য করা হয়েছে। এক যুদ্ধে আমেরিকাকে চূর্ণ করার উচ্চতর ইরানি কৌশল’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরাক ও আফগানিস্তানে হামলার মতো অভিযান চালিয়ে ইরানের সশস্ত্র বাহিনীকে সহজেই পরাজিত করা মার্কিন সশস্ত্র বাহিনীর পক্ষে কখনও সম্ভব হবে না। অন্যদিকে ইরানের সশস্ত্র বাহিনী মার্কিন সেনাদের ভয়াবহ ক্ষতিসাধনে সক্ষম হবে।
ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, আমেরিকার ডেস্ট্রয়ারগুলো হরমুজ প্রণালীতে অকেজো। ইরান এ অঞ্চলে ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে নিজেকে প্রস্তুত করে রেখেছে। বিশেষ করে ইরান এমন সব ক্ষমতা অর্জনের কৌশলের ওপর জোর দিয়েছে যাতে তার এইসব ক্ষমতা আমেরিকার ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থাকে। ইরান এ ক্ষেত্রে নিখুঁত বহু গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র, বিপুলসংখ্যক স্পিড বোট, ড্রোন, সাবমেরিন বা ডুবো-জাহাজ ও মাইন প্রস্তুত করে রেখেছে।
ইরান কয়েকটি উপসাগরের ও কয়েকটি দ্বীপের অধিকারী হওয়ায় এবং এ অঞ্চলের ভৌগোলিক কিছু বৈশিষ্ট্যের কারণে বিস্ফোরক-বসানো বোটগুলোকে লুকিয়ে রাখতে পারবে ও ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপক গোপন ইউনিটগুলোকে ব্যবহার করতে পারবে। ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট আরও লিখেছে, ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী, নিয়মিত সশস্ত্র বাহিনী ও স্বেচ্ছাসেবী বাহিনীর নানা কৌশলের কারণে আমেরিকা শিগগিরই ইরানে হামলা চালাতে পারবে এমন সম্ভাবনা খুবই কম।
মার্কিন কৌশলগত গবেষণা কেন্দ্রের ২০১২ সালের এক প্রতিবেদনেও বলা হয়েছিল যে, এ-ডি/ এ-টু কৌশলগুলোর আলোকে ইরান অপ্রচলিত যুদ্ধের কৌশলগুলোকে উন্নত করছে যাতে পারস্য উপসাগরে মার্কিন অভিযান মোকাবেলা করা যায়। ইরান তার উদ্ভাবিত নানা অস্ত্র ও অপ্রচলিত নানা পদ্ধতির আশ্রয় নিয়ে এবং উন্নত বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে হরমুজ প্রণালীতে যেকোনো অভিযান চালানো আমেরিকার জন্য অসম্ভব করে তুলেছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য