4সৌরশক্তি চালিত বিমান দ্যা সোলার ইমপালস-২ আজ(রোববার) প্রশান্ত মহাসাগর পাড়ি দেয়ার দুঃসাহসিক যাত্রা শুরু করেছে। চীনের পূর্বাঞ্চলীয় শহর নানজিং থেকে হাওয়াইয়ের উদ্দেশ্যে স্থানীয় সময় রাত ২-৪০’এ যাত্রা শুরু করেছে সোলার ইমপালস-২।

৬২ বছর বয়সি সুইস পাইলট আন্দ্রে বোরসশেবার্গ বিমানটি চালাচ্ছেন। পাঁচ হাজার দুইশ’ ৭০ মাইল বা সাড়ে আট হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে তার প্রায় ১৩০ ঘণ্টা বা ছয় দিন ছয় রাত্রি লাগবে। উচ্চতা ভেদে ঘণ্টায় ৯০ থেকে সর্বোচ্চ ১৪০ কিলোমিটার গতিতে উড়তে পারবে এ বিমান। বিমানটি ওজনে একটি সাধারণ মোটর গাড়ির চেয়ে একটু বেশি।

এ যাত্রা পথে দৈনিক মাত্র বিশ মিনিট ঘুমানোর সময় তিনি পাবেন। যাত্রা পথে পাইলটের দায়িত্ব ছেড়ে যেতে পারবেন না তিনি। তাই প্রাকৃতিক কাজ সারার জন্য বিশেষ ভাবে তৈরি করা হয়েছে বিমানটির পাইলটের আসন। আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় এর আগে বেশ কয়েক দফা তার যাত্রা স্থগিত করা হয়েছে। চরম অবস্থায় বিমান ত্যাগ করার মতো পরিস্থিতি দেখা দিলে আন্দ্রেকে প্যারাসুট দিয়ে মহাসাগরে নামতে হবে।

অবশ্য আন্দ্রে বলেছেন, এ যাত্রাপথে কোনো ঝুঁকি দেখতে পাচ্ছেন না তিনি। যাত্রাপথে কি কি সমস্যা দেখা দিতে পারে তা দীর্ঘ সময় ধরে খতিয়ে দেখা হয়েছে বলেন জানান তিনি। উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, বিমানটির একটি ইঞ্জিন খারাপ হয়ে গেলেও বাকি তিনটি দিয়ে ওড়া অব্যাহত রাখা যাবে। এ ছাড়া চরম পরিস্থিতির জন্য বিমানে লাইফ বোট আছে এবং তা কি ভাবে ব্যবহার করতে হয় তাও জানা আছে বলে উল্লেখ করেন আন্দ্রে।

এ যাত্রা শুরুর আগে সোলার ইমপালস-২ এক নাগাড়ে ২৪ ঘণ্টার বেশি আকাশে থাকে নি । বা এর আগে কখনো সৌরশক্তি চালিত বিমানটি মহাসাগর পাড়ি দেয় নি। বিমানটিকে শক্তি যোগাবে ডানায় বসানো ১৭ হাজারের বেশি ফটোভোলটিক সেল বা সৌরবিদ্যুৎ কোষ।

মার্চের ৯ তারিখে বিমানটি আবুধাবি থেকে বিশ্ব সফর শুরু করে। পুনব্যবহারযোগ্য জ্বালানি বিশেষ করে সৌরশক্তি ব্যবহারে মানুষকে উৎসাহিত করার লক্ষ্য নিয়ে বিশ্ব ঘোরার দুঃসাহসিক যাত্রায় নেমেছে সোলার ইমপালস-২। বিমান শিল্পের পক্ষ থেকে এ দুঃসাহসিক যাত্রা নিয়ে প্রথম দিকে হাসি-ঠাট্টা করা হয়েছে। কিন্তু বিশ্ব এখন আগ্রহ নিয়ে সোলার ইমপালস-২’র ওপর নজর রাখছে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য