Hiru dinajpur pic 30-05-15-শাহারিয়ার হিরুঃ দিনাজপুর জিলা স্কুল ও সরকারী বালিকা বিদ্যালয় বিপযর্য, অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভ। পাশের হার ৮৫.৫০% : জিপিএ ৫ পেয়েছে ১০,৮৪২ জন

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৫ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ৮টি জেলার মোট ২ হাজার ৫৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ২৭ হাজার ১৮২ শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়ে ১ লাখ ০৮ হাজার ১৮৯ জন পাশ করেছে। জিপিএ ৫ পেয়েছে ১০ হাজার ৮৪২ জন। পাশের হার ৮৫.৫০%। গত বছর পাশের হার ছিল ৯৩.২৬ %। সেরা ২০ এ ৮ জেলার  মধ্যে রংপুরই ৯টি। দিনাজপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও দিনাজপুর জিলা স্কুলের ফলাফলে ধ্বস নামায় অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের উপ-পরীক্ষক নিয়ন্ত্রক মোঃ আরিফুল ইসলাম ও কলেজ পরিদর্শক মোঃ ফারাজ উদ্দীন তালুকদার আনুষ্ঠানিকভাবে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের ফলাফল প্রকাশ করে। সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে বলেন এ বছর অংকে সৃজনশীল করায় এবং বিরোধীদলের লাগাতার অবরোধ হরতালের কারনে এ বছর ফলাফলে পাশের হার  হ্রাস পেয়েছে। তবে দিনাজপুরে সরকারী দুটি প্রতিষ্ঠান জিলা স্কুল ও গার্লস স্কুলের ফলাফল  সন্তোস জনক হয়নি। এ সময় উপ-সচিব আব্দুর রাজ্জাক উপস্থিত ছিলেন।  প্রেস ব্রিফিংএ জানানো হয়, দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সেরা ২০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শীর্ষে রয়েছে প্রথম-ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ রংপুর, দ্বিতীয় স্থানে- রংপুর ক্যাডেট কলেজ, রংপুর, তৃতীয় স্থানে-দি ম্যালেনিয়াম স্টার স্কুল এন্ড কলেজ, রংপুর, চতুর্থ স্থান-রংপুর জিলা স্কুল, পঞ্চম স্থানে- সৈয়দপুর সরকারী টেকনিক্যাল হাই স্কুল এন্ড কলেজ নীলফামারী, ষষ্ঠ স্থান- আমেনা বাকী রেসিডেন্সিসিয়াল মডেল স্কুল, দিনাজপুর, সপ্তম স্থান- আইডিয়াল পাবলিক স্কুল রংপুর, অষ্টম স্থান- রিফলেস পাবলিক স্কুল,রংপুর, নবম স্থান- ক্যানটনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ-দিনাজপুর, দশম স্থানে-সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নীলফামারী,  ১১তম স্থান- ঠাকুরগাঁও সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ১২তম স্থান- ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড বালিকা উচ্চ স্কুল -রংপুর, ১৩তম স্থান- দিনাজপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,১৪তম স্থান-নীলফামারী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, ১৫তম স্থান-ঠাকুরগাঁও সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়,১৬তম স্থন-রংপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,১৭তম স্থনে-বীর উত্তম শহীদ সামাদ হাই স্কুল, রংপুর, ১৮তম স্থানে- আদর্শ হাই ্স্কুল বিরামপুর,দিনাজপুর, ১৯তম স্থনে- পুলিশ লাইন স্কুল এন্ড কলেজ-রংপুর ও ২০তম স্থানে-ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড হাই স্কুল-দিনাজপুর।
আমেনা বাকী রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল-দিনাজপুর এবার আগের স্থানেই রয়েছে। দিনাজপুর জিলা স্কুল ২০ এর তালিকা থেকে হারিয়ে গেছে। হতাশ হয়েছে দিনাজপুর জিলা স্কুলের ছাত্রদের অভিভাবকরা। অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। দিনাজপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয় ও দিনাজপুর জিলা স্কুলের শিক্ষার মান নীচের দিকে ধাবিত হওয়ায় অনেকেই সমালোচনা করেছে। ইচ্ছা মাফিক চলছে বিদ্যালয় দুইটি। কোন নিয়ন্ত্রন নাই। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে চলছে সরকারী বালিকা বিদ্যালয়টি। তাও আবার পন্ডিত শিক্ষক এখন প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে আছেন। ফলে শিক্ষা ক্ষেত্রে বিপর্যয় ঘটেছে। হতাশ দিনাজপুরবাসী।
দিনাজপুর জেলায় সেরা দশে স্থান করে নিয়েছে (১) আমেনা বাকী রেসিডেন্সিসিয়াল মডেল স্কুল,দিনাজপুর, (২)ক্যানটনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ-দিনাজপুর,(৩) দিনাজপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,(৪) আদর্শ হাই ্স্কুল বিরামপুর,দিনাজপুর, (৫)ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড হাই স্কুল-দিনাজপুর, (৬)দিনাজপুর জিলা স্কুল,(৭)ছোট হাসিমপুর আর,এম হাই স্কুল-দিনাজপুর,(৮) সেতাবগঞ্জ আইডিয়াল একাডেমি-দিনাজপুর,(৯) বীরগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়-দিনাজপুর ও (১০) নবীপুর উচ্চ বিদ্যালয়-দিনাজপুর।
এদিকে দিনাজপুর সরকার উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক চন্দ্র শেখ ভট্টাচার্য জানান, মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২৬৩ জন। এর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ১৬জন। এবার ২ জন ফেল করেছে। দিনাজপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আকতারা পারভীন জানান, মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২৫৯ জন। এ মধ্যে ১৪৩ জন জিপি-এ ৫ পেয়েছে। এই স্কুলেও ২ জন ফেল করেছে। উভয় প্রধান শিক্ষক গতবছরের চেয়ে এবার কিছুটা খারাপ হওয়ায় বিরোধীদলের হরতাল ও অবরোধকে দায়ি করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য