নীলফামারীরতে সরকারীভাবে গম ক্রয়ে ব্যাপক অনিয়মডিমলা, নীলফামারী প্রতিনিধিঃ নীলফামারীতে সরকারীভাবে গম ক্রয় অভিযান শুরু করা হলেও কৃষক পাচ্ছে না তাদের ন্যায্য অধিকারসহ সঠিক দাম। এমনকি কৃষকদের গমের স্লিপ চেয়ারম্যামরা কালো বাজারে বিক্রয়ের কারণে চলে যাচ্ছে টাউট বাটপার ও কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীদের হাতে। সরকারের দেওয়া স্লিপ না পেয়ে বাধ্য হয়ে জেলার বিভিন্ন বাজারে কৃষক ৬শ টাকা মন দরে (১৫ টাকা কেজি) গম বিক্রি করছে। অথচ একই গম প্ইাকারা কিনে ২৮টাকা কেজি দরে সরকারি খাদ্য গুদামে সরবরাহ করে আসছে।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ২৮টাকা কেজি দরে সরকারীভাবে ১হাজার ৭৮২মেট্রিক টন গম ক্রয় করা হবে। সূত্র মতে ডিমলায় ২৮৯ মেট্রিক টন, ডোমার ১৫০, চিলাহাটি ১৩০, নীলফামারী সদর ৬২২, জলঢাকা ২৫৯, কিশোরগঞ্জ ২৫০, সৈয়দপুর ৮২ মেট্রিক টন গম ক্রয় করা হবে। সরকারীভাবে কৃষকদের নিকট থেকে গম ক্রয়ের নিয়ম থাকলেও বাস্তবে গমের স্লিপ ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে অসাধু ব্যবসায়ীদের পকেটে চলেগেছে। ডিমলায় ৫টি ইউনিয়নে বেশি পরিমাণে বরাদ্দ নিয়ে বিপাকে পড়েছে কৃষি বিভাগ। ডিমলা উপজেলার সদর, নাউতরা ও খালিশা চাপানি ইউনিয়নের কৃষকদের স্লিপ বিক্রি করে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান। ডিমলা সদর ইউনিয়নে ৫০ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ দেওয়া হলেও গমের সম্পূর্ণ স্লিপ বিক্রি করে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান রফিজুল ইসলাম। প্রতি টন গমের স্লিপ ৩ হাজার টাকা বিক্রি করেন তিনি। দক্ষিন তিতপাড়া গ্রামের কৃষক আইয়ুব আলী জানায়, সরকারীভাবে গম বিক্রির স্লিপের জন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে বলা হলেও তিনি বলেন স্লিপ শেষ হয়েছে। একই অভিযোগ করেন আবুল কাশেম, মফিজার রহমান, আবদুল কাদের, আজম আলীসহ একাধিক কৃষক। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমাউন কবির জানায়, উপজেলা ক্রয় কমিটির সীধান্ত মেতাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও কৃষি বিভাগের লোকজনের যৌথ স্বাক্ষরে স্লিপ বিতরণ করা হয়েছে। ডিমলা সদর ইউপি চেয়ারম্যান রফিজুল ইসলাম জানায়, ডিমলায় মাত্র ৫০ মেট্রিক টন গমের স্লিপ পাওয়া গিয়াছে। যা কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। তবে কাকে দেওয়া হয়েছে তা তিনি বলতে পারেননি। তিনি গমের স্লিপ বিক্রির বিষয়টি অস্বীকার করেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোছাচ্ছেল হোসেন জানায়, মাত্র ১টন গম ক্রয় করা হয়েছে। কৃষক না আসলে ক্রয়ের সুযোগ নেই।
এ ব্যাপারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে জানায়, নীলফামারীর ৭টি খাদ্য গুদামে সরকারিভাবে ১হাজার ৭৮২মেট্রিক টন গমের মধ্যে মঙ্গলবার পয্যন্ত ৪শত মেট্রিকটন গম ক্রয় করা হয়েছে। ডিমলায় মাত্র ১ মেট্রিক টন গম ক্রয় করা হয়েছে। কৃষকরা গমের স্লিপ পাচ্ছে না প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রকৃত কৃষককের বিষয়টি কৃষি বিভাগ নিশ্চিত করার কথা। তারপরও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য