3+kerryআন্তর্জাতিক ডেস্ক:যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ কূটনীতিক জন কেরি ইয়েমেনে ‘মানবিক বিরতি’ প্রশ্নে আলোচনার জন্য বুধবার রিয়াদে পৌঁছেছেন। কয়েক সপ্তাহের যুদ্ধের পর সেখানে পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতি ঘটতে থাকায় পালানোর চেষ্টা করার সময় অনেক লোক নিহত হয়।
বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থা জানায়, সেখানে সৌদি সীমান্ত এলাকায়ও আরো হতাহতের ঘটনা ঘটে। এ সময় সেখানে ইয়েমেন থেকে নিক্ষিপ্ত গোলার আঘাতে পাঁচজন নিহত হয়।
রিয়াদ জানায়, ইয়েমেনে ত্রাণ সরবরাহ পাঠানোর সুযোগ দিতে তারা বিমান অভিযান সাময়িক বন্ধের কথা বিবেচনা করছে। ইয়েমেনে ইরান সমর্থনপুষ্ট বিদ্রোহীদের অগ্রযাত্রা ঠেকাতে গত ২৬ মার্চ সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট সেখানে বিমান অভিযান শুরু করে।
২২টি মানবিক সংগঠন সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, জ্বালানি সংকটের কারণে ইয়েমেনে তাদের জরুরি ত্রাণ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ফলে তারা দ্রুত বিভিন্ন পথ খুলে দিতে এবং জোটের বিমান হামলা ও সমুদ্র অবরোধ অবসানের আহবান জানিয়েছে।
সেখানে এ যুদ্ধের কারণে বে-সামরিক নাগরিকদের মধ্যে ক্রমেই উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
বুধবার সাগর পথে ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় এডেন নগরীতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করার সময় ৩২ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
স্বাস্থ্য বিভাগের এক কর্মকর্তা বে-সামরিক নাগরিকদের হত্যায় এবং একটি মৎস্য বন্দর ওএকটি নৌযানে গোলার আঘাতে অপর ৬৭ জন আহত হওয়ায় হুথি বিদ্রোহীদের দায়ী করে।
সৌদি আরব সফরের আগে কেরি জিবুতিতে সাংবাদিকদের বলেন, রিয়াদে কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় তিনি বিমান হামলা সাময়িক বন্ধ রাখার বিষয়টি উত্থাপন করবেন।
কেরি বলেন, ‘মানবিক বিরতির ধরন এবং এটি কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায় সে ব্যাপারে আমরা আলোচনা করবো।’
কেরি বলেন, ‘ইয়েমেনের মানবিক পরিস্থিতির ব্যাপারে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য