5+New+Yorkআন্তর্জাতিক ডেস্ক: পুলিশের সহিসংসতার প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলীয় নিউ ইয়র্ক শহর থেকে শুরু করে মধ্যাঞ্চলীয় ডেনভার পর্যন্ত বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ হয়েছে। বুধবার অনুষ্ঠিত এসব বিক্ষোভের মধ্যে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভটি বর্ণবাদী সহিংসতা কবলিত বাল্টিমোর শহরে হয়েছে। শহরটিতে দুদিন ধরে দাঙ্গা চলার পর এদিন কোনো সহিংসতা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ শেষ হয়েছে। বাল্টিমোরের পুলিশ হেফাজতে ফ্রেড্ডি গ্রে নামের ২৫ বছরের এক কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ গুরুতর আহত হওয়ার পর হাসপাতালে মারা যান। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরটিতে বর্ণবাদী দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়েছিল।

বাল্টিমোরের আগে ক্লিভল্যান্ড, মিজৌরির ফার্গুসন, নিউ ইয়র্ক ও যুক্তরাষ্ট্রের অন্য কয়েকটি এলাকায় শ্বেতকায় পুলিশের গুলি বা নির্যাতনে আফ্রিকান-আমেরিকানদের (কৃষ্ণকায়) মৃত্যু নিয়ে দেশটিতে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এসব ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বুধবারের প্রতিবাদগুলো হয়। নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের কয়েকটি এলাকায় বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে রাস্তায় অবস্থান নেয়। এ সময় পুলিশ ৬০ জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করে। ডেনভারেও বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  এছাড়া বোস্টন, হিউস্টন, ফার্গুসন, মিজৌরি, রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি ও সিয়াটলেও প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়েছে।

বাল্টিমোরে দাঙ্গা থামাতে রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সান্ধ্য আইন জারি করা হয়েছে। সান্ধ্য আইন  কার্যকর করতে শহরটিতে তিনহাজার ন্যাশনাল গার্ড ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শহরজুড়ে কড়া পাহারার মধ্যে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী নগর কেন্দ্রে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য