03. Nepalআন্তর্জাতিক ডেস্ক: এখন পর্যন্ত এক হাজার ১৮০৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে নেপাল পুলিশ জানিয়েছে। আহত হয়েছেন চার হাজার ৭০০ জন।
৭ দশমিক ৯ মাত্রার এই ভূমিকম্পে শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের বিস্তীর্ণ এলাকাও কেঁপে উঠে। ভারতে অন্তত ৫২ জন, তিব্বতে ১৭ জন এবং বাংলাদেশে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।
ভূমিকম্পে হিমালয় পর্বতমালায় ব্যাপক তুষার ধস হয়েছে। এতে অন্তত ১৮ পর্বতারোহীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এই সংখ্যাও আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
রাজধানী কাঠমান্ডুতে বহু ভবন ধসে পড়েছে, এর মধ্যে বিশ্বঐতিহ্য হিসেবে ঘোষিত ধারারা টাওয়ারসহ অনেক পর্যটন কেন্দ্রও রয়েছে।
ভয়াবহ এই দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে নেপাল সরকার। রোববার সকালে উদ্ধার তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে। উদ্ধারকাজে আন্তর্জাতিক সহায়তা চেয়েছেন দেশটির তথ্যমন্ত্রী মিনেন্দ্র রিজাল।
রাতে বেশ কয়েক দফা শক্তিশালী পরাঘাতে উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হয়েছে। এ ছাড়া ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতিতে মহাসড়কে যান চলাচল বিঘিœত হওয়ায় এবং সরঞ্জামের অভাবে উদ্ধার কর্মীরা ঠিকমতো কাজ করতে পারছেন না বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
এতে বলা হয়, অনেক জায়গায় আটকে পড়াদের সন্ধানে ধ্বংসস্তূপের ভিতরে খালি হাতে তল্লাশিতে নেমেছেন লোকজন। হাড়কাঁপানো শীত ও বৃষ্টির মধ্যে রাতে রাজধানীতে কয়েক হাজার মানুষ ঘরের বাইরে অবস্থান নেওয়ায় তাদের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করতে হিমশিম খায় কর্তৃপক্ষ।
রামেশ্বর ডঙ্গল নামে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, তাঁবু টাঙিয়ে এবং স্কুল ও অন্যান্য সরকারি ভবনে মানুষের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়। সড়ক-মহাসড়ক যান চলাচলের উপযোগী করতে ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি উদ্ধার তৎপরতায় হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। বুলডোজারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে রাতভর উদ্ধার কার্যক্রম চালান উদ্ধারকর্মীরা।
নেপালের হাসপাতালগুলোতে আহতদের উপচে পড়া ভিড়। তাদের সামলাতে রীতিমত লড়াই চালিয়ে যেতে হচ্ছে চিকিৎসক ও সহযোগীদের। রোববার নতুন রোগী আসার সম্ভাবনা থাকলেও এরইমধ্যে চিকিৎসা সরঞ্জামের সংকট দেখা দিয়েছে বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
কাঠমান্ডুর বীর হাসপাতালে শনিবার তিনশ থেকে সাড়ে তিনশ রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হয় বলে দীনেশ চৌধারী নামে এক চিকিৎসক জানান। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বাইরের দোকান থেকে ওষুধ কিনতে হয় বলে জানান তিনি। ইউএস জিওলজিকাল সার্ভের তথ্য অনুযায়ী, নেপালের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর পোখারা থেকে ৫০ মাইল পূর্বে ভূপৃষ্ঠের মাত্র ২ কিলোমিটার গভীরে ছিল এই ভূমিকম্পের কেন্দ্র।
ভূপৃষ্ঠের অল্প গভীরে এই ভূমিকম্পের উৎপত্তি হওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা বেশি বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন। কিছু প্রত্যন্ত এলাকায় এখনো উদ্ধার কার্যক্রম শুরু হয়নি। ভূমিকম্পে কাঠমান্ডুতে পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণের স্থান ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্বঐতিহ্য ধারারা টাওয়ারও ধসে পড়েছে।
১৮৩২ সালে রানির জন্য নির্মিত এই স্থাপনার চূড়ার বেলকনিটি ১০ বছর আগে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। ৬০ মিটার উচ্চতার টাওয়ারটি এখন ১০ মিটার উচ্চতা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এর ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে অনেকের মরদেহ বের করে আনা হয়েছে। দুইশ’র মতো মানুষ সেখানে আটকা পড়েছিলেন বলে এক পুলিশ সদস্য জানিয়েছেন। শহরজুড়ে বহু পুরোনো কাঠের মন্দিরসহ বিভিন্ন ভবনের ধ্বংসস্তূপ সরানোর চেষ্টা করছেন উদ্ধার কর্মীরা।
“একটি আশ্রমের কাছে ধসে পড়া ভবনের ধ্বংসস্তূপের নিচে তিনজন সন্ন্যাসীর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেছি আমি। আমরা তাদের বের করে আনার চেষ্টা করছি এবং অন্য কেউ আটকে আছে কি না তা খুঁজে দেখছি,” দেবযানী পান্থ নামে এক ভারতীয় পর্যটক রয়টার্সকে বলেছেন।
পর্যটনের জন্য সুপরিচিত দেশ নেপালে ভূমিকম্পের সময় তিন লাখ বিদেশি অবস্থান করছিলেন বলে দেশটির পর্যটন মন্ত্রণালয় জানায়। ভারতীয় সেনাবাহিনীর পর্বতারোহী একটি দল এভারেস্টে ১৮টি মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছে। ভূমিকম্পে ধসের কারণে এভারেস্টের বেইজ ক্যাম্পের কিছু অংশ বরফের নিচে চাপা পড়েছে বলে নেপালের পর্যটন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা জ্ঞানেন্দ্র শ্রেষ্ঠা জানিয়েছেন।
পর্যটন মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী,  ভূমিকম্পের সময় অন্তত এক হাজার পর্বতারোহী (যাদের মধ্যে প্রায় চারশ জন বিদেশি) বেইজ ক্যাম্প বা এভারেস্টের চূড়ার পথে ছিলেন। অ্যালেক্স গ্যাভান নামে রোমানিয়ান এক পর্বত আরোহী এক টুইটে লিখেছেন, ‘শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর বড় ধরনের তুষার ধস’ হয় বেইজ ক্যাম্পে। জীবন বাঁচাতে দৌড় শুরু করেন তিনি। পরের এক টুইটে আহতদের উদ্ধারে হেলিকপ্টার পাঠানোর জন্য অনুরোধ করেন তিনি।
“অনেকে মারা গেছেন। গুরুতর আহত অনেকে। হেলিকপ্টার না এলে আরো মারা পড়বে।” নেপালের দুর্গতদের জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়েছে বিভিন্ন দেশ। ভারত এরইমধ্যে তিন টন ত্রাণ ও ৪০ জন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত উদ্ধারকর্মী নেপালে পাঠিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য সংস্থা ইউএসএইডের তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্রের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মীদের একটি দল নেপালের পথে রওয়ানা হয়েছে। এ ছাড়া জরুরি সাহায্যের জন্য প্রাথমিকভাবে ১০ লাখ মার্কিন ডলার অর্থ সাহায্য দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।
যুক্তরাজ্যের প্রাধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ভূমিকম্প দুর্গতদের সাহায্যে ‘সব কিছু করার’ ঘোষণা দিয়েছেন। সাহায্য ও সহায়তার যেকোনো ধরনের অনুরোধে সাড়া দিতে ফ্রান্স প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদ। নেপাল কর্তৃপক্ষকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে পাকিস্তান।
বাংলাদেশ সরকার উদ্ধারকাজে অংশগ্রহণসহ চিকিৎসা ও মানবিক সহায়তা দেওয়ার কথা জানিয়েছে। নেপালে এর আগে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল ১৯৩৪ সালের ভূমিকম্পে, ওই দুর্যোগে সাড়ে ৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য