02. Calbuco-volcanoআন্তর্জাতিক ডেস্ক: বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ছয়টার দিকে কালবুকো আগ্নেয়গিরি থেকে রাশি রাশি ধোঁয়া এবং ছাই বের হতে শুরু করে এবং গোটা এলাকা আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে কালো ধোঁয়ায়। কয়েক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ছাই। এ ঘটনায় পুয়ের্তো মন্ত এবং পুয়ের্তো ভারাস শহর দুটিতে জরুরি অবস্থা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। কালবুকো আগ্নেয়গিরিটি গত ৪৩ বছর ধরে সুপ্ত থাকার পর বুধবার জেগে ওঠে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় এক আগ্নেয়গিরি বিশেষজ্ঞ। এটি থেকে নির্গত ১০ কিলোমিটার ব্যাপ্তি ধোঁয়ার কারণে বন্যাসহ পরিবেশের ওপর নানা বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে বলেও তিনি সতর্ক করে দিয়েছেন। চিলিতে সবমিলিয়ে ৯০টির মতো সক্রিয় আগ্নেয়গিরি রয়েছে যার মধ্যে সবচেয়ে বিপজ্জনক হচ্ছে কালবুকো।
এ অবস্থায় জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন চিলির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রোডরিগো পেনাইলিল্লো। কালবুকোতে উদিগিরণের ঘটনায় প্রতিবেশী আর্জেন্টিনার বারিলোচে শহরেও জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে এবং শহরের লোকজনকে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। কালবুকো থেকে মাত্র ১শ কিলোমিটার দূরের ওই শহরটিতে ছাই ও ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।
সরকারি কর্মকর্তারা আগ্নেয়গিরির চারপাশের ২০ কিলোমিটার এলাকা খালি করার নির্দেশ দেন। নির্দেশ পাওয়ার পরপরই এলাকার লোকজনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। এ পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার মানুষকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।
আগ্নেয়গিরির নিকটবর্তী পুয়ের্তো মন্ত শহরটি ধুঁয়ায় ঢেকে গেছে বলে জানা গেছে। এতে শহরবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন শহরের মেয়র গার্ভয় পারেদেস। বুধবার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়র আরো জানিয়েছেন, পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হয়ে ওঠছে। এ ছাড়া অগ্নুৎপাতের কারণে ওই লস লাগোস রাজ্যের বালানকো নদীর বরফ গলে বন্যা দেখা দিয়েছে।
কলো ধোঁয়ায় আকাশ ঢেকে যাওয়ায় ওই রাজ্যের নির্ধারিত সকল বিমান বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠাগুলোও। স্থানীয় টেলিভিশন  ফুটেজে দেখা যায়, পুয়ের্তো মন্ত শহরের সড়কগুলোতে দীর্ঘ যানজট তৈরি হয়েছে। গ্যাস স্টেশনগুলোতে লাইন ধরে জ্বালানি সংগ্রহ করছে লোকজন।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য