08. Giriraj Singhআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের পর সংসদে ক্ষমা চেয়েও পার পান নি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং। দলীয় মন্ত্রীর এমন ব্যবহারে ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাকে ডেকে রীতিমত ধমকে দেন। আর এতে কেঁদেই ফেলেন গিরিরাজ।
মঙ্গলবার বিজেপি’র সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষ হওয়ার পরপরই মোদি সংসদে তার কার্যালয়ে গিরিরাজ সিংকে ডেকে পাঠান এবং খুবই কড়া ভাষায় তিরস্কার করেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।
এনডিটিভি জানায়, সোমবার লোকসভায় বিষয়টি নিয়ে কংগ্রেস এমপি’দের ব্যাপক হট্টগোলের পর গিরিরাজ ক্ষমা চাইতে বাধ্য হন। কংগ্রেসের নেতারা তার পদত্যাগের দাবি জানানোর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীকে এজন্য ক্ষমা চাইতে বলেন।
মোদীর দপ্তর থেকে গিরিরাজকে কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়েও আসতে দেখেন সাংবাদিকরা। যদিও মোদীর সঙ্গে দেখা হওয়া কিংবা তার ভর্ৎসনার মুখে কাঁদার কথা অস্বীকার করেছেন গিরিরাজ। তবে তার একজন জ্যেষ্ঠ সহকর্মী ভেঙ্কাইয়া নাইডু বলেন, “ক্ষমা চাইলে কেউ ছোটো হয়ে যায় না। গিরিরাজ দুঃখ প্রকাশ করেছেন, তারপরও তাকে তিরস্কারের মুখে পড়তে হয়েছে। এ কারণে তিনি হতাশ হয়ে পড়েছিলেন।”
এ মাসের শুরুতে গিরিরাজ সিং বলেছিলেন, “যদি রাজিব গান্ধী নাইজেরিয়ার কোনো নারীকে বিয়ে করতেন এবং তিনি যদি সাদা-চামড়ার মানুষ না হতেন তবে কংগ্রেস কি ওই নারীর নেতৃত্ব মেনে নিত?” গিরিরাজের দাবি, তার ওই মন্তব্য একান্তই ব্যক্তিগত মত। তার এই মন্তব্য বিদ্যুৎ গতিতে দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে এবং নিন্দার ঝড় ওঠে।
গত বছর ক্ষমতা গ্রহণের পর মোদি তার দলের নেতাদের একাধিকবার সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন, স্রোতের বিপরীতে এবং বিতর্ক উস্কে দেয় এ ধরনের মন্তব্য না করতে। এসব করলে তার সরকাররের উন্নয়ন কার্যক্রম থেকে জনগণের মনোযোগ সরে যাবে বলে মনে করেন মোদী।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য