8+unHCRআন্তর্জাতিক ডেস্ক: বাংলাদেশ সরকারের কাছে জামাত নেতা মোহাম্মদ কামরুজ্জানের মৃত্যুদন্ড স্থগিত করার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার সংক্ষেপে  ইউএনএইচসিআর। সোমবার দেশের সর্বোচ্চ আদালতে তার আপিল খারিজ হয়ে যাওয়ার পর এ আহ্বান জানিয়েছেন ইউএনএইচসিআর মুখপাত্র রাভিনা শামদাসানি। বুধবার জেনেভায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে রাভিনা শামদাসানি  বলেছেন,‘ আমরা বাংলাদেশ সরকারের কাছে মোহাম্মদ কামরুজ্জামানের মৃত্যুদ- জরুরি ভিত্তিতে স্থগিত করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য গঠিত বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের দায়ে কামরুজামানের বিরুদ্ধে মৃত্যুদন্ড রায় ঘোষণা করেছিলেন।

কিন্তু মানবাধিকার হাই কমিশনার বলছে, ওই বিচারে ত্রুটি এবং অনিয়ম লক্ষ্য করা গেছে। এ ছাড়া এই বিচারের আন্তর্জাতিক মান নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছে সংস্থাটি। এর আগেও আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারকে সতর্ক করে দিয়েছিল ইউএনএইচসিআর। ট্রাইব্যুনালে বিচারের স্বচ্ছতা নিয়েও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল সংস্থাটি। তাই বাংলাদেশ সরকারের এই আদলতে সাজাপ্রাপ্ত কোনো ব্যক্তির মৃত্যুদ- কার্যকর করা উচিত হবে না বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ মানবাধিকার।

২০১০ সালেআত্মপ্রকাশ করার পর বিরোধী দল জামায়াত ই ইসলাম এবং  বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সংক্ষেপে বিএনপি’র ১৬ জনের বিরুদ্ধে মৃত্যুদ- রায় ঘোষণা করেছে ট্রাইব্যুনাল। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে গণহত্যা এবং মানবতা বিরোধী নানা অপরাধে অভিযুক্ত করে তাদেরকে মৃত্যুদন্ড রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এসব অপরাধীদের একজন ছিলেন আবদুল কাদের মোল্লা। ২০১৩ সালে তার মৃত্যুদন্ড কার্যকর করেছে বাংলাদেশ সরকার।

২০১৩ সালের মে মাসে জামায়াত নেতা কামরুজ্জামানের বিরুদ্ধে মৃত্যুদন্ডের রায় ঘোষণা করেন আদালত। তিনি ২০১৪ সালের নভেম্বরে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে মৃত্যুদন্ড স্থগিত করা হয়। চলতি বছর ৫ মার্চ ওই রায় স্বাধীনভাবে পর্যবেক্ষণের জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানান কামরুজ্জামান। কিন্তু কোনো শুনানি ছাড়াই তার পিটিশন নাকচ করে দেন আদলত।

জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশন বিশ্বের দেশগুলোতে মানুষের নাগরিক এবং রাজনীতিক অধিকার সুরক্ষায় কাজ করে থাকে। সংস্থাটির মতে, মৃত্যুদন্ড আরোপ, বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ ন্যায্যবিচার ছাড়াই এ ধরনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হলে মানুষের বেঁচে থাকার অধিকারকে অগ্রাহ্য করা হয়। জাতিসংঘ যেকোনো ধরনের মৃত্যুদন্ডের বিরোধিতা করে থাকে, এমনকি সেটি ন্যায়বিচারের মাধ্যমে দেওয়া হলেও।

ইউএনএইচসিআর মুখপাত্র রাভিনা শামদাসানি কামরুজ্জামানের মৃত্যুদন্ড স্থগিত করার দাবি জানিয়ে আরো বলেছেন,‘আমরা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি তার মৃত্যুদন্ড স্থগিত করার আবেদন জানাচ্ছি। একই সঙ্গে আমরা তাদেরকে এ ধরনের অমানবিক চর্চা বন্ধ করে মৃত্যুদন্ড নিষিদ্ধ ঘোষণাকারী দেশগুলোর সঙ্গে যোগ দেয়ারও আহ্বান জানাচ্ছি।’
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য