Fulbari Stationফুলবাড়ী, (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী রেলওয়ে স্টেশনটি এখন বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে।স্টেশনের পরিত্যাক্ত ভবন গুলো এখন অপরাধীদের অভয়রণ্যে পরিনত হয়েছে। স্টেশন এলাকা দিয়ে গড়ে উঠেছে মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেট। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এখানে মাদক সেবীরা মাদক গ্রহনের জন্য আসে, যার ফলে মাদক সেবীদের আনা গোনায়  বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে স্টেশনের সাধারন বাসীন্দারা। ঘটছে রেল যাত্রীদের ছোট খাটো ছিন্তাইয়ের ঘটনা।
ঢাকায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া কয়েকজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ফুলবাড়ী রেলস্টেশনের বর্তমান যে অবস্থা বিশেষ করে সন্ধ্যার পর তাতে করে মাদকসেবী ছাড়া অন্য সভ্য কেউ অবস্থান করতে পারে না।

রেলস্টেশন এলাকায় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় রেল স্টেশনের ১ম শ্রেনীর যাত্রী বিশ্রামাগারটি তালা বদ্ধ রয়েছে, তিতুমীর ট্রেনের যাত্রীরা প্লাট ফর্মে পায়চারী করে সময় পার করছেন,প্লাট ফর্মের যাত্রী ছাউনি জুড়ে বসেছে ছোট-বড় না না প্রকার দোকান ,যা রেলয়ে আইনের সম্পুর্ন বেআইনি। এর পর দেখা গেল ২য় শ্রেনীর যাত্রী বিশ্রমাগারটি খোলা রয়েছে, সেখানে যাত্রী বসার কোন সুযোগ নেই, মেঝেতে বিছানা ফেলে কয়েকজন যুবক ও মধ্যবয়সী লোক তাস খেলছে, তারা সাংবাদিক দেখে খেলা বন্ধ করে যে যার মত করে চলে গেল।
স্টেশনের  কয়েক জন বাসীন্দা তাদের নাম প্রকাশ না করার সর্তে বলেন, স্টেশনের এক পয়েন্ট ম্যান্ অর্থ উপার্জন করার জন্য প্রতিদিনে এখানে জুয়ার আসর বসায়,। তারা বলেন, স্টেশন এলাকায় এখন দিন-দুপুরে বিক্রি হচ্ছে গাজা ফেন্সিডিল,হিরোইন ও চোলাই মদ। স্টেশন এলাকার বাসীন্দারা বলেন, মাদক আসে পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র ভারত থেকে চোরা পথে, পার্শ্ববর্তী স্টেশন সীমান্ত এলাকা হিলি থেকে রেলে সহজে বহন করে নিয়ে এসে এই স্টেশন এলাকায় বেচা-কেনা হয়ে থাকে।
এই বিষয়ে স্টেশন মাষ্টার আব্দুল বারী বলেন, স্টেশন এলাকার নিরাপত্তার দায়ীত্ব রেলওয়ে পুলিশের, কিন্তু ফুলবাড়ীতে রেলওয়ে পুলিশের কোন স্টেশন না থাকায়, পার্বতীপুর থেকে এসে নিরাপত্তা দিতে পারছে না,। ফুলবাড়ী থানার পুলিশ মাঝে মধ্যে টহল দিলেওে তেমন কোন কাজ হচ্ছে না। যার ফলে স্টেশন এলাকায় অপরাধ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
এদিকে রেল যাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন দিনাজপুর জেলার অতিগুরুত্বপুর্ন স্টেশন ফুলবাড়ী এই স্টেশন দিয়ে জেলার অধিকাংশ মানুষ রেলে যাতায়াত করে থাকে, ফলে সারা বছরে এই স্টেশনে থাকে যাত্রীদের ভিড়, এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে স্টেশনের টিকিট মাষ্টারেরা কতিপয় অসাধু লোকের মাধ্যমে চাহিদা পুর্ণ এলাকার টিকিট গুলো কালো বাজারে বিক্রি করে দেয়। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে রেলওয়ে স্টেশন মাষ্টার আব্দুল বারী বলেন, এই স্টেশনে যে পরিমাণ যাত্রীর চাপ থাকে সেই পরিমান টিকিট বরাদ্ধ নেই, যার ফলে যাত্রীদের টিকিট সংঙ্কট থেকে যায়।
রেল যাত্রী ও স্টেশন এলাকাবাসীদের দাবী প্রশাসনের কড়া নজরদারি দিয়ে স্টেশনের অপরাধ সিন্ডিকেট ভেঙ্গে দিয়ে স্টেশন এলাকাকে মাদক মুক্ত করা।
পৌরসভা মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক বলেন, রেলস্টেশনটি মাদক বেচাকেনাসহ মাদকসেবিদের আখড়ার কথা শোনা গেছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর সহায়তায় এটি প্রতিরোধের ব্যবস্থা করা হবে।

ফুলবাড়ী থানার ওসি এবিএম রেজাউল ইসলাম বলেন, স্টেশন এলাকায় মাদক ব্যবসার একটি সিন্ডিকেট থাকার খবর পেয়েছি, পুলিশ ঐ সিন্ডিকেট ভাঙ্গার জন্য তাদের কে হর্ন্যে হয়ে খুজছে অল্প সময়ের মধ্যে তাদের ধরে  বিচারের মুখোমুখি করা হবে।
[ads1]
[ads2]

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য