4+myanmar-student-protestআন্তর্জাতিক ডেস্ক: মায়ানমারে শিক্ষাসংক্রান্ত একটি আইন নিয়ে ছাত্র-আন্দোলন ক্রমশ ঘনীভূত রূপ ধারণ করছে। ছাত্রদের ওপর চড়াও হয়েছে সরকারি পেটোয়া বাহিনী এবং চলছে গণগ্রেপ্তরাভিযান। জানা যায় গত বছরের সেপ্টেম্বরে একটি ‘ত্রুটিপূর্ণ’ শিক্ষাবিল পাস করা হলে এ আন্দোলন সূচিত হয়।

পাসকৃত আইন অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়ন্ত্রণ চলে যাবে মন্ত্রীপরিষদের একটি বড় অংশের হাতে। তাতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তগ্রহণ-ক্ষমতা খর্ব হবে। যার প্রভাব পড়তে পারে অ্যাকাডেমিক সিলেবাসসহ খরচসংক্রান্ত নীতিমালায়। ছাত্ররা চাইছেন শিক্ষায়তনের পূর্ণ স্বায়ত্বশাসন। দীর্ঘ সামরিক শাসনের অবসানের পর চার বছর হলো থেইন সেইনের প্রশাসন ক্ষমতারোহন করেছে। কিন্তু বলা হচ্ছে সামরিক স্বেচ্ছাচারিতার চর্চা এখনও প্রশাসনিক কর্মকাঠামো থেকে দূরীভূত হয়নি। নতুন কোনো আইন প্রণয়নের ক্ষেত্রে এখনও জনমত যাচাই করা হয় না।

আন্দোলন সারাদেশে চললেও মূলত তা ঘনীভূত আকার নিচ্ছে লেতপাদান অঞ্চলে। অঞ্চলটি রাজধানী রেঙ্গুন থেকে ১৪০ কিলোমিটার দূরবর্তী। ধরপাকড় অনেকদিন থেকে চালু থাকলেও গেল শুক্রবার এক ছাত্রী ও চার ছাত্রকে আটক করা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা মতে পুলিশ ছাত্রদের ওপর বেধড়ক লাঠি চার্জ করে থাকে। এবং দলবিচ্ছিন্নদের ট্রাকে তুলে নিয়ে যায়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শুক্রবার আটক পাঁচ শিক্ষার্থীকে এখনও মুক্তি দেয়নি পুলিশ। তাদের মুক্তির দাবিতে আন্দোলনে স্লোগান উঠছে। অবস্থান কর্মসূচি চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য