5-Ukraine-Mayআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনে রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীরা দেবালৎসেভ শহর ঘিরে ফেলার দাবি করেছে। তবে ইউক্রেন বলেছে, দেশটির সৈন্যরা একটি সরবরাহ সড়ক বরাবর যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে। এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, সংকট নিরসনে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলে ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের বিষয়টি তিনি নাকচ করছেন না।
জার্মানীর চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের সঙ্গে বৈঠকের পর ওবামা বলেন, রাশিয়া অস্ত্র বিরতি চুক্তির ‘প্রতিটি অঙ্গীকার’ ভঙ্গ করেছে। যুদ্ধরত পক্ষগুলোকে অস্ত্র সরবরাহের বিরোধিতা করেছেন মেরকেল। তিনি ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের সঙ্ঘাত বন্ধে একটি নতুন শান্তি চুক্তির ব্যাপারে ওবামাকে ব্রিফ করেন। ইউক্রেনে রাশিয়াপন্থী সাবেক প্রেসিডেন্ট ভিক্তর ইয়ানুকোভিচ ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সাথে চুক্তি করতে অস্বীকৃতি জানানোর পর গত ফেব্রুয়ারিতে গণআন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত হন। এরপর গত এপ্রিলে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের দোনেৎস্ক ও লুহানস্কে রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহ শুরু হয়। এর কয়েক সপ্তাহ আগে এক গণভোটের মাধ্যমে ক্রিমিয়া উপদ্বীপ ইউক্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর রুশ ফেডারেশনে যুক্ত হয়।
ইউক্রেন সরকার ও পূর্বাঞ্চলের বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ৫ হাজার ৪শ’ জন নিহত হয়েছে।
পশ্চিমারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের বিদ্রোহীদের অস্ত্র ও সৈন্য নিয়ে সাহায্যের অভিযোগ করেছে। তবে ক্রেমলিন এ অভিযোগ প্রত্যাখান করেছে।
বিদ্রোহীরা সোমবার জানায়, দেবালৎসেভগামী একটি প্রধান সরবরাহ সড়ক ও একটি কৌশলগত রেল জংশন তারা বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। তবে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে।
সামরিক মুখপাত্র ওলেকজান্দার মাতুজইয়াংক বলেন, ‘এই মুহূর্তে সরবরাহ সড়ক বরাবর যুদ্ধ চলছে।’
দেবালৎসেভ ও এর আশপাশের এলাকায় ইউক্রেনের হাজার হাজার সৈন্য রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত এক সপ্তাহেরও বেশি ধরে ব্যাপক যুদ্ধ হচ্ছে। বিদ্রোহীরা নতুন করে বেশ কিছু এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।
ইউক্রেন সরকারের কর্মকর্তারা জানান, গত ২৪ ঘন্টায় যুদ্ধে ৯ সৈন্য ও কমপক্ষে ৭ বে-সামরিক নিহত হয়েছে।
গত বছরের মিনস্ক চুক্তি পরিকল্পনা পুনরুজ্জীবিত করতে ফ্রান্স-জার্মানীর প্রচেষ্টা সম্পর্কে অবহিত করতে সোমবার ওয়াশিংটনে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সাথে সাক্ষাৎ করেন মেরকেল।
রাশিয়া, ইউক্রেন, জার্মানি ও ফ্রান্স শান্তি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করতে বুধবার বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে বৈঠকে বসবে।
জার্মানীর চ্যান্সেলরের সঙ্গে বক্তৃতাকালে ওবামা বলেন, ইউক্রেনে প্রাণঘাতী অস্ত্র সরবরাহের বিষয়টি এখনও আলোচনার টেবিলে আছে।
তিনি বলেন, ‘যদি কূটনৈতিক প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়, তা হলে আমি আমার টিমকে সব ধরনের পন্থা কাজে লাগাতে পরামর্শ দেব।’ তিনি বলেন, প্রাণঘাতী অস্ত্র সরবরাহ অন্যতম পন্থা হিসেবে বিবেচনায় থাকবে।
মেরকেল ইউক্রেন প্রশ্নে রাশিয়ার সাথে কূটনৈতিক সমাধানে পৌঁছাতে কিছু প্রতিবন্ধকতার কথা স্বীকার করেন। তবে তিনি বলেন, প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। একইসঙ্গে যুদ্ধরত পক্ষগুলোকে অস্ত্র সরবরাহের বিরোধিতা করেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য