আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা, থেকেঃ ২০ দলীয় আহুত হরতাল রোববার গাইবান্ধা জেলায় ঢিলেঢালাভাবে পালিত হয়েছে। পুলিশ নাশকতার আশংকায় শনিবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে বিভিন্নস্থান থেকে ২১ জন বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। হরতাল চলাকালে জেলা শহরের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ ছিল। অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমা খোলা থাকলেও লোকজনের উপস্থিতি ছিল কম। শহরে রিক্সা, মটর সাইকেল, অটোবাইক, সিএনজি, ম্যাজিক পরিবহনগুলো যথানিয়মে চলাচল করেছে। তবে টার্মিনাল থেকে বিআরটিসি এবং পাবলিক পরিবহনের কোন বাসই ছেড়ে যায়নি এবং বাইরে থেকেও আসেনি। প্রতিটি রুটে বিলম্বে ট্রেন চলাচল করেছে। ট্রেনগুলোতে ছিল যাত্রীদের উপচে পড়া ভীড়। অবরোধ ও হরতাল চলাকালে ২০ দলের পক্ষ থেকে শহরে কোন প্রকার মিছিল মিটিং অনুষ্ঠিত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। হরতাল  সমর্থক পিকেটারদেরও তৎপরতা ছিল কম। তবে সড়কের নিরাপত্তায় বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে পুলিশি টহল ও প্রহরা অব্যাহত ছিল। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। অপরদিকে রোববার ভোরে পিকেটারদের ধাওয়া খেয়ে সুন্দরগঞ্জের শোভাগঞ্জ ইউনিয়নের বালাছিরা মাষ্টারের মোড়ে একটি ট্রাক খাদে পড়ে য়ায়। এতে ড্রাইভারসহ ৩ জন আহত হয়। এদিকে গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে ঢাকা রংপুর মহাসড়কের রাইগ্রামে ট্রাক নিয়ন্ত্রন হাড়িয়ে একটি গাছের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে ৪ জন আহত হয়েছে বলে হাইওয়ে পুলিশ জানিয়েছে। অপর এক ঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের চাদপাড়া পোষ্ট অফিসের দরাজার তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে আসবাবপত্র ও টাকা সহ চিঠিপত্রে অগ্নিসংযোগ করেছে দৃবৃত্তরা। পোষ্ট মাষ্টার আবু জাফর জানান, শনিবার রাতে কেবা কারা রাতে এই অগ্নিসংযোগ করে। সকালে অফিসে এসে তিনি এই ঘটনা দেখতে পান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য