দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে তদারকির অভাব কর্মীদের দায়িত্বহীনতা অফিস ফাঁকি দেওয়া প্রবনতা এবং বেশির ভাগ কমিউনিটি ক্লিনিকে বিদ্যুৎ না থাকা, প্রয়োজনের তুলনায় ঔষধ সরবরাহ কম থাকায় উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিকের চিকিৎসা সেবা ভেস্তে যেতে বসেছে। নিয়ম অনুযায়ী কমিউনিটি ক্লিনিক খোলা থাকার কথা সরকারী ছুটি বাদে সপ্তাহে শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা থেকে ৩ টা পর্যন্ত। কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন ১ জন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রভাইডার সিএইচসিপি। তার সঙ্গে থাকবেন রুটিন অনুযায়ী কমপক্ষে ১ জন পরিবার কল্যাণ সহকারী। সম্প্রতি কাহারোল উপজেলার রামচন্দ্রপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে সকাল ১০ টায় বন্ধ দেখা গেছে, সেখানে কোন কর্মীও নেই। আধা ঘন্টা অপেক্ষা করেও কাউকেও পাওয়া যায় নাই। এলাকার রোগীরা জানান কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো অনেক সিএইচসিপি স্বাস্থ্য সহকারী ঠিকমত দায়িত্ব পালন করে না। দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠী দোড়গড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌছে দেওয়ার লক্ষে সরকারের কমিউনিটি ক্লিনিক গুলো তৈরী করা হলেও কর্মকর্তাদের দূর্নীতি ও তদারকির অভাব আর কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মীদের কর্তব্যের অবহেলায় তা সম্ভব হয়ে উঠছে না। গতকাল আমাদের প্রতিনিধি কাহারোল উপজেলা হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান যেখানে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া যাবে সেখানেই দ্রুত সেই ক্লিনিকে কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে।


 

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য