আজহারুল আজাদ জুয়েল, দিনাজপুর ॥ ১৯৭২ সালের ৬ জানুয়ারী মহারাজা স্কুলের মাইন বিস্ফোরণের ঘটনাকে ষড়যন্ত্রমূলক হতে পারে বলে মঙ্গলবার দিনাজপুরে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় আলোচকদের অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। আলোচকগণ মহারাজা স্কুল প্রাঙ্গণে স্মৃতি সৌধ নির্মাণে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর যে প্রতিশ্রুতি ছিল তা অবিলম্বে বাস্তবায়নের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার ৬ই জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এই সন্দেহ প্রকাশ এবং দাবী জানানো হয়। ১৯৭২ সালের ৬ই জানুয়ারী দিনাজপুর শহরের মহারাজা স্কুলে মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রানজিট ক্যাম্পে এক ভয়াবহ মাইন বিস্ফোরণে প্রায় ৩ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা নিহত ও ৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা আহত হন। দিবসটি স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন শেষে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে স্মৃতি পরিষদের আহ্বায়ক সফিকুল হক ছুটুর সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন নাট্য ব্যক্তিত্ব কাজী বোরহান, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শাহজাহান শাহ, দিনাজপুর জেলা কমিউনিটিষ্ট পার্টির সভাপতি আলতাফ হোসাইন, শহীদ আসাদুল্লাহর ভাই ডাঃ মোঃ শহিদুল্লাহ, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষ, নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, ৬ই জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক আজহারুল আজাদ জুয়েল, কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক মেহেরুল ইসলাম, হারুন উর রশিদ রাজা প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব সুলতান কামাল উদ্দীন বাচ্চু।

এবছর ৬ জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদ ছাড়াও মহারাজা স্কুল পরিচালনা কমিটিসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচী গ্রহণ করে। সকালে দুর্ঘটনাস্থল মহারাজা স্কুলে নির্মিত স্মৃতি সৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের পক্ষে শহর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, ৬ জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদ, দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড, দিনাজপুর প্রেসক্লাব, আদর্শ কলেজ, মহারাজা স্কুল, সরকারী বালিকা বিদ্যালয়, দিনাজপুর হাই স্কুল, দিনাজপুর একাডেমী, ইকবাল হাই স্কুল, শহর আওয়ামী লীগ, শিক্ষক সমিতিসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। স্মৃতি পরিষদ চেহেলগাজী মাজারে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের গণকবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

মহারাজা স্কুল প্রাঙ্গণে পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য হাদিউল ইসলাম হাদির সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আহমদ হোসেন, আদর্শ কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ খালেকুজ্জামান, কেবিএম কলেজের অধ্যক্ষ সাইফুদ্দিন আখতার, মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের জেলা সাধারণ সম্পাদক পরিমল চক্রবর্তী তপন, বাসদ নেতা সারওয়ারুল আলম ক্লিপ্টন, সিপিবি নেতা এ্যাডঃ রিয়াজুল ইসলাম রাজু, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম এবং মহারাজা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আফরোজা খাতুন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য