আর্ন্তজাতিক : ইন্দোনেশিয়ার জাভা সাগরে বিধ্বস্ত এয়ার এশিয়ার বিমানের বড় দুটি অংশ খুঁজে পেয়েছে উদ্ধার-কর্মীরা। গত সপ্তাহে ১৬২ আরোহী নিয়ে বিমানটি জাভা সাগরে বিধ্বস্ত হয়ে তলিয়ে যায় বলে সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। দুর্ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিমানের ৩০ যাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
ইন্দোনেশিয়ার অনুসন্ধান ও উদ্ধারকারী দলের প্রধান বামবাং সোয়েলিসতো শনিবার বলেন, ‘আমরা বিমানের বড় দুটি অংশের সন্ধান পেয়েছি। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, এটি বিধ্বস্ত এয়ার এশিয়া বিমানের অংশ।’ তিনি জানান, যেখানে বিমানের অংশ পাওয়া গেছে, সেখানে লাশ উদ্ধারে ডুবুরি পাঠানো হয়েছে।
গত শুক্রবার গভীর রাতে বোর্ণিও দ্বীপের কাছাকাছি জাভা সাগরে ব্যাপক তল্লাশি চালানোর সময় সাগরের তলদেশে কোন একটা বস্তুর সন্ধান পাওয়া যায়। সোয়েলিসতো বলেন, বৃহত্তম বস্তু দুটির আকার প্রায় ৩২ ফুট লম্বা ও ১৬ ফুটের মত চওড়া হতে পারে। তিনি বলেন, বস্তুগুলোর সন্ধান পাওয়ার পর সেখানে অভিযান চলছে। সমুদ্রের তলদেশে বস্তু দুটির প্রকৃত চিত্র শনাক্ত করতে রিমোট নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে সমুদ্র উত্তাল থাকায় এ যন্ত্র ব্যবহারে বেগ পেতে হচ্ছে।
বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর এখনও জীবিত কেউ উদ্ধার হয়নি এবং দুর্ঘটনার কারণও জানা যায়নি। এখন পর্যন্ত ৩০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে এবং দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া ও সাগর উত্তাল থাকায় বেশ কয়েকবার উদ্ধার অভিযান স্থগিত রাখা হয়।
উদ্ধার হওয়া লাশের মধ্যে একজনের পরিচয় জানা গেছে। তিনি বিমানের যাত্রী ছিলেন এবং তার নাম হায়াতি লুৎফিয়া হামিদ।
বিমানটি জাভা সাগরে যে তলিয়ে গেছে তা প্রায় পুরোপুরি নিশ্চিত। বিমানের বেশ কিছু ধ্বংসাবশেষ ইতোমধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে বিমানের ফিউসলেগ এখনও পাওয়া যায়নি। কর্মকর্তারা বলছেন, বেশিরভাগ যাত্রী এর ভেতরে থাকতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য