আড়াই কোটি ছাড়িয়ে দারুণ ব্যবসা করছে আমির-অনুষ্কা অভিনীত পিকে সিনেমাটি।  ভারতীয় সিনেমার ইতিহাস ভেঙ্গে এবার নতুন রেকর্ড গড়ছে। তবে এ সিনেমাকে কেন্দ্র করে বিতর্কও কিন্তু কম হচ্ছে না।  ভারতের রাজনৈতিক মহলও ব্যপক উৎসাহ নিয়ে ছবিটি দেখেছে ও নিজেদের ভালা লাগার বিষয়ে মুখ খুলেছেন। শুরু থেকেই সিনেমাটি নিয়ে নানা বিতর্ক হলেও এবার প্রদর্শনী বন্ধের জন্য রীতিমতো তান্ডব চালানো হয়েছে সিনেমা হলে।
ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,পিকে সিনেমার প্রদর্শনী বন্ধ করতে আগ্রার শ্রী টকিজ নামক একটি সিনেমা হলে তান্ডব চালিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এবং বাজরাঙ্গ দল নামক দুটি সংগঠন।
ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায়। প্রতিবেদনে বলা হয় সংগঠন দুটি সিনেমা হলে গিয়ে হলের দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তাকে সিনেমার প্রদর্শনী বন্ধ করার জন্য বলে। তারা পিকে সিনেমার পোস্টার ছিঁড়ে আগুন জ্বালায় এবং হলে তান্ডব চালায়। পাশাপাশি তারা আমিরকে পাকিস্তানে যাওয়ার জন্য উপদেশ দিয়ে শ্লোগান দেয়।
এ বিষয়ে হলের দায়িত্বরত কর্মকর্তা স্থানীয় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে জানা যায়। বাজরাঙ্গ দলের মদন শর্মা এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের রাজেন্দ্র গার্জ পিকে সিনেমার মাধ্যমে হিন্দু ধর্মের প্রতি কটাক্ষ করার জন্য আমিরের তীব্র সমালোচনা করেছেন। এর আগে সংগঠন দুটি দাবি করে আসছিল পিকে সিনেমার সংলাপের মাধ্যমে হিন্দু ধর্মের প্রতি কটাক্ষ করা হয়েছে।
রাজ কুমার হিরানি পরিচালিত পিকে সিনেমাটি গত ১৯ ডিসেম্বর মুক্তি পায়। সিনেমাটিতে আমিরের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন আনুশকা শর্মা, সঞ্জয় দত্ত, বোমান ইরানি, সুশান্ত সিং রাজপুত প্রমুখ।
‘পিকে’ থেকে বিতর্কিত দৃশ্যগুলো বাদ দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিল বোর্ড ৷ ‘পিকে’কে কেন্দ্র করে তৈরি হওয়া বিতর্ক এবং দৃশ্য বাদ দেওয়ার দাবির জবাবে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশনের চেয়ারপার্সন লীলা স্যামসন এ বিষয়টি সম্পর্কে তাদের সিদ্ধান্তের কথা গণমাধ্যমকে জানান।
এরই মধ্যে ভারতের হয়ে এ ছবিটি রেকর্ড গড়ার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। আড়াই কোটি রুপি ইতিমধ্যে হাতিয়ে নিয়েছে পিকে। আর লীলা স্যামসন জানিয়েছেন, সিনেমাটি ইতিমধ্যেই মুক্তি পেয়ে গিয়েছে, বেশ লাভজনক হচ্ছে। তাই সেখান থেকে কোনও দৃশ্য বাদ দেওয়ার সুযোগ নেই।
এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি আরও জানিয়েছেন, প্রতিটি ছবি কোনও না কোনও ধর্মীয় আবেগকে আঘাত করতে পারে৷ কিন্তু সিনেমা এমন একটা সৃজনশীল ভাবপ্রকাশের মাধ্যম যেখানে শিল্পীরা তাদের নিজস্ব বক্তব্য সমাজের সামনে তুলে ধরেন৷তাই সেখানে সেন্সর বোর্ড কখনওই বাধা দিতে পারে না৷
এছাড়াও ইতিমধ্যেই সিনেমাটিকে সেন্সর শংসাপত্র দিয়ে দিয়েছে এবং সেটি মুক্তিও পেয়ে গিয়েছে৷অতএব সেটি জনসাধারণের দেখাও হয়ে গিয়েছে৷এখন আর ছবি থেকে কোনও দৃশ্য বাদ দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না৷ এদিকে ‘পিকে’ প্রসঙ্গে সেন্সর বোর্ড তার অবস্থান জানিয়ে দিলেও বিশ্ব হিন্দু পরিষদ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের কাছে এদিনই ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানার অভিযোগে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে ‘পিকে’কে৷
আমিরের ছবিটিকে কোনও দৃশ্য বাদ না দিয়েই শংসাপত্র দেওয়ার কারণে লিখিত আবেদনের মাধ্যমে তারা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রককে সেন্সর বোর্ডের কাজকর্মের ধরন বদলের ব্যাপারেও সংগঠন তরফে জানানো হয়েছে৷

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য