দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে রক্ষানাবেক্ষনের অভাবে নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে শত বছরের পুরনো আদি ফুলবাড়ীর ঐতিহ্যবাহী নৌকা ঘাটটি।

মানবসভ্যতার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের বিনিময়ের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে গড়ে ওঠে হাট-বাজার। এই কারনে গ্রাম বাংলার এতিহ্যবাহী আদি যানবাহনের এক মাত্র উপায় ছিল নৌকা ও গরুুর গাড়ী। এজন্য নদীর তীরে গড়ে ওঠে হাট-বাজার ও গঞ্জ। তেমনি দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলা জনপতটি শাখা যমুনা নদীর তীরে সে সময়ে গড়ে ওঠে। সেই সময়ের দূর দুরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা নৌকা নিয়ে শাখা যমুনা নদী দিয়ে আসতেছিল ফুলবাড়ী জনপদে। সেই সময়ের ঐতিহ্যবাহী আদি ফুলবাড়ী শহর দক্ষিনবাসুদেবপুর বর্তমানে পুরানাবন্দর নামে পরিচিত। সেই নৌকাঘাটটি কোনো প্রকার সংস্কার ও রক্ষনাবেক্ষন না থাকায় এখন ধীরে ধীরে নদী গর্ভে বিলিন হতে চলেছে।

দক্ষিনবাসুদেবপুর গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বাসুদেবপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রহমান, ফুলবাড়ীর আইনজীবী এড্যা. দেবল কুমার সরকার অক্ষেপকরে বলেন, এই ঘাটটি একসময় এই অঞ্চলের ব্যবসা বাজিণ্য সহ অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার একমাত্র মাধ্যম ছিল। এখন আমাদের প্রজন্মের নিকট সম্পূর্ণ অজানায় থেকে যাচ্ছে। তাই আমাদের প্রজন্মের নিকট আমাদের অতিথ ঐতিহ্যর ইতিহাস ধরে রাখার জন্য এই ঐতিহ্যবাহী ফুলবাড়ী ঘাটটি মেরামত করা একান্ত প্রয়োজন হয়ে দেখা দিয়েছে।

এই ঘাটের উপরই রয়েছে একটি কবরস্থান এখানে কয়েকজন অলি আলেম ব্যক্তির কবর থাকায় অনেক পীর ভক্ত মুড়িদান মুসলিমরা পীরস্থান হিসেবে চিহৃত করে সেখানে ওয়াজ মাহফিল  ওরস করে আসছে কিন্তু এই ঘাটটি কোনো প্রকার রক্ষনাবেক্ষন না করায় নদীগর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে ফুলবাড়ী উপজেলার এই ঐতিহ্যবাহী স্থানটি। এজন্য ফুলবাড়ী এই ঐতিহ্যবাহী স্থানটি ফুলবাড়ী বাসির অতিথ ঐতিহ্যর নীরব স্বাক্ষী । তাই এটিকে রক্ষা করার জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ঐ এলাকার বাসিন্দারা। তথ্যঃ ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান সুমন, ফুলবাড়ী

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য