আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের একটি আদালত দেশটির এক কট্টরপন্থী আলেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে। লাল মসজিদের এই খতিব মাওলানা আব্দুল আজিজ জঙ্গিরা বোধগম্য কারণেই পেশোয়ারের স্কুলে হামলা চালানো হয়েছে বলে উল্লেখ করেন। পেশোয়ারের স্কুলে জঙ্গি হামলার নিন্দা জানাতে অস্বীৃকতি জানিয়েছিলেন আজিজ। এছাড়া জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সেনা অভিযানকে তিনি অনৈসলামিক আখ্যা দিয়েছেন।

আব্দুল আজিজের বিরুদ্ধে সুশীল সমাজের কর্মীরা মসজিদের বাইরে বিক্ষোভ করেন। তিনি তার সমালোচনাকারীদের হুমকি দেন। এই ঘটনার তদন্ত শেষে পুলিশ আদালতের কাছে তার গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করে। খবর এএফপি’র। এক পুলিশ কর্মকর্তা ও লাল মসজিদের এক মুখপাত্র জানান, তালেবানপন্থী আলেম ও রাজধানী ইসলামাবাদের লাল মসজিদের প্রধানের বিরুদ্ধে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের হুমকি প্রদানের অভিযোগ আনা হয়েছে। টেলিভিশনের একটি টক-শোতে তিনি পেশোয়ারের স্কুলে পাকিস্তানের ইতিহাসে জঘন্যমত হত্যাকা-ের নিন্দা জানাতে অস্বীকৃতি জানান। পেশোয়ারের ওই ঘটনায় প্রায় ১৫০ জন প্রাণ হারায়। এদের অধিকাংশই শিশু।

তালেবানের প্রতি সহানুভূতিশীল বলে আব্দুল আজিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে আরো বিক্ষোভ হয়। নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে ইসলামাবাদের এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘পুলিশ আদালতের নির্দেশ পেয়েছে এবং আমরা তা বাস্তবায়নে যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’ লাল মসজিদের মুখপাত্র হাফিজ ইহতেশাম আহমেদ আজিজের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের জন্য পুলিশের ওপর সুশীল সমাজ কর্মীদের চাপকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ‘এই মামলার কোন ভিত্তি নেই। তাই আমরা মাওলানা আব্দুল আজিজকে গ্রেফতারের যে কোন ধরনের পদক্ষেপে বাধা দেব।’ তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান দেশটির উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় উপজাতীয় এলাকায় অবস্থিত জঙ্গি আস্তানায় সেনা অভিযানের প্রতিশোধ নিতেই স্কুলে হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে।





মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য