মো. ইউসুফ আলী, দিনাজপুর ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় প্রতারক চক্র অভিনব কৌশলে যাকাতের টাকা বিতরনের নামে দরিদ্র মানুষের সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা আত্মসাত এবং ঘরবাড়ী অগ্নিসংযোগের অভিযোগে দায়েরকৃত মামলার আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট স্মরকলিপি প্রদান এবং জেলা প্রশাসক কার্যালয় সম্মুখে মানববন্ধন করেছে।

সোমবার দুপুর ১২টায় বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের চকবানারশি গ্রামের বিধবা জরিনা, গৃহবধূ আকলিমা, শাহেরা, খাতেমুন, হালিমা, মনোয়ারা, জবেদাসহ প্রায় শতাধিক পুরুষ-মহিলা দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মুখে তাদের আত্মসাতকৃত অর্থ আদায় ও ৫টি বাড়ী জ্বালিয়ে দেয়ার অভিযোগে থানায় দায়েরকৃত মামলার আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন করে।

এসময় বিধবা জরিনা খাতুন বলেন, বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের চকবানারশি গ্রামের ইসমাইল হোসেন, আইনুল হক খোকন, লোকমান আলী, মোকাররম হোসেন, বুলু মিয়া, আব্দুর রউফ ও আব্দুস ছামাদ ওই গ্রামের দরিদ্র মহিলাদের জানায় সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশে জাকাত ও ফিতরার টাকা নেয়ার লোক না থাকায় ওই টাকা বীরগঞ্জে বিতরনের দায়িত্ব তারা পেয়েছে বলে দরিদ্র পরিবারের মহিলাদের প্রলোভন দেখায়।

এসব কথা প্রচার করে প্রত্যেকের নিকট থেকে ৭’শ টাকা করে ওই প্রতারক চক্রের সদস্যরা গ্রহণ করে। বিশ্বাসযোগ্য করতে প্রতারক আব্দুস ছামাদ তার বাড়িতে মহিলাদের এনে ছবিও তোলে এবং একটি ভিডিও চিত্র দেখায়। ওই ভিডিও চিত্রে দরিদ্রদের মাঝে টাকা বিতরণ করার একটি অভিনব দৃশ্য প্রচার করে। এভাবে ওই গ্রামসহ পাশের আরো কয়েকটি গ্রাম থেকে সাড়ে ৬’শ দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে ৪ লাখ ৫৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক চক্রটি। যাদের বেশীর ভাগই মহিলা।

প্রতারনার বিষয়টি জানতে পেরে প্রতারিতরা টাকা ফেরত চায়তে গেলে প্রতারক চক্রটি তাদের এখন প্রান নাশের হুমুক দিচ্ছে। গত ২০ অক্টোবর এই ঘটনায় ভুক্তভোগীদের পক্ষে বিধবা জরিনা বাদী হয়ে দিনাজপুর জুডিশিয়াল আদালতে মামলা করলে বিচারকের নির্দেশে বীরগঞ্জ থানার পুলিশ মামলাটি এজাহার হিসেবে রেকর্ড করেছে।

কিন্তু এ বিষয়ে বীরগঞ্জ উপজেলার ৬নং নিজপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক (৪৫) এর প্রভাবে বীরগঞ্জ থানার পুলিশ ম্যানেজ হয়ে ওই অপরাধ চক্রীদের গ্রেফতার করছেন না। ফলে মামলার আসামী হয়েও অপরাধীরা এসব মহিলা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রতিনিয়ত প্রাণ নাশের হুমকি প্রদর্শন করছেন।

নিরুপায় হয়ে ভুক্তভোগীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধনের পর আসামীদের গ্রেফতারের দাবী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট পৃথক ২টি স্মারকলিপি প্রদান করেন। তারা অবিলম্বে চেয়ারম্যান খালেকসহ তার সহযোগীদের গ্রেফতার করে দরিদ্র পরিবারের টাকাগুলো আদায়ের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্মারকলিপি ও মানববন্ধন থেকে দাবী জানান।

অন্যান্যের মধ্যে ওই এলাকার আবু হানিফ, মফিজ উদ্দীন, নুর হোসেন, আব্দুল মান্নান, গুল শাহেরা, মাবিয়া, রোজিনা বেগম, রুবিনা বেগম, নুর জাহান, জীতেন্দ্র নাথ রায়সহ আরো শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

বীরগঞ্জ থানার ওসি শওকত হোসেন প্রতারনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ বিষয়টি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করছেন। তবে রাজনৈতিক তদ্বিরের কারণে আসামীদের গ্রেফতার করতে সমস্যা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য