গাড়ি ধাক্কা দিয়ে পালানোর মামলায় আরো বিপাকে পড়লেন সলমন খান। ঘটনার দিন মত্ত অবস্থায় ছিলেন তিনি, এ অভিযোগকেই আরো জোড়ালো করল আদালতে রাসায়নিক পরিক্ষকের বক্তব্য। ২০০২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সালমানের রক্তে পাওয়া অ্যালকোহলের পরিমাণ স্বাভাবিকের থেকে অনেক বেশি ছিল বলে আদালতকে জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, তার দেহে মরফলিন পরিক্ষাও করা হয়। তার ফলও পজেটিভ এসেছে। ৬২এমজি ইথাইল অ্যালকোহল পাওয়া যায় তার রক্তে। ২০০২ সালের এ মামলা আদালতে চলাকালীন এক সাক্ষী সালমানকে চীনতে পারেন।

তিনি আদালতকে জানান, সে রাতে সালমানই চালকের আসনে বসেছিলেন। সাক্ষী হচ্ছেন, জে ডব্লিউ ম্যারিওটের পার্কিং অ্যাসিসটেন্ট। তিনি জানান, ঘটনার কিছুক্ষণ আগে সালমান তার তিন বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ল্যান্ডক্রুসার চালিয়ে বেরিয়ে যান, তার হাতে পাঁচশো টাকা বকশিসও দিয়ে যান যাওয়ার সময়।

এর কিছুক্ষণের মধ্যেই মদ্যপ অভিনেতার গাড়ির ধাক্কায় একজন মারা যান, এবং চারজন মারাত্মকভাবে জখম হন। এরপর অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে গেছে এ মামলা। হারিয়ে গেছে মামলা সংক্রান্ত বহু মূল্যবান নথিও। আপাতত সেই মামলাতেই বিপাকে সালমান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য