মোঃ মিলন পারভেজ, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি থেকে উত্তোলিত পাথর বিক্রি না হওয়ায় ইয়ার্ডে পাথর জমে ৩ লক্ষাধিক মেঃ টন পাথরের স্তুপ গড়ে উঠেছে। প্রতিদিন ৩ শিফটে খনি থেকে প্রায় ৪ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। উত্তোলন বিপুল পরিমাণ হলেও প্রতিদিন ১ হাজার টন পাথরও বিক্রি হচ্ছে না।

এ অবস্থায় পাথর ব্যবহারকারী সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে এ পাথর ব্যবহার করে সে জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সংশ্লিষ্টরা। তা না হলে যে কোন সময় পাথর উত্তোলন ব্যাহত হতে পারে বলে খনি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

খনি সূত্র জানায়, খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) চলতি বছরের অক্টোবর মাস থেকে ৩ শিফটে প্রতিদিন প্রায় ৪ হাজার টন পাথর উৎপাদন করছে। এতে করে খনি এলাকায় বিপুল পরিমাণ পাথরের মজুদ গড়ে উঠেছে। কিন্তু কাঙ্খিত হারে তা বিক্রি হচ্ছে না।

এ ব্যাপারে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এসএএফএম নাজমুল আহসান হায়দার পাথর বিক্রিতে গতি নেই স্বীকার বলেন, খনি ইয়ার্ডে বর্তমানে ৩ লক্ষাধিক টন বোল্ডার ও সাইজ পাথর মজুদ রয়েছে। এছাড়া ডাস্ট রয়েছে লক্ষাধিক টন। তিনি জানান, এই বিপুল পরিমাণ মজুদের সঙ্গে প্রতিদিন যোগ হচ্ছে আরো ৩ হাজার ৬শ টন পাথর। পাথর বিক্রিতে গতি না এলে আগামী ২/৩ মাসের মধ্যে স্থানাভাবে পাথর উত্তোলন ব্যাহত হতে পারে।

এ অবস্থা থেকে উত্তরণে পাথর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে মধ্যপাড়ার পাথর ব্যবহার করে সেজন্য সরকারের ওপর মহলের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য