Parbatipur-Upazilaপার্বতীপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতাঃ পার্বতীপুর উপজেলা রেজিষ্ট্রি অফিসের উপ-নিবন্ধক (সাব-রেজিস্টার) খলিলুর রহমান জুয়া খেলার দায়ে কারাবাসে থাকায় দিনাজপুরের দুটি উপজেলায় জমিজমাসহ স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি বেচাকেনা ও বন্ধক নিবন্ধনের কাজ বন্ধ রয়েছে। এতে দুই উপজেলার প্রায় তিন শতাধিক দলিল লেখক ও তাদের সহকারীরা হঠাৎ করে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। এদিকে,সাজাপ্রাপ্ত উপ-নিবন্ধকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট সুপারিশ করে চিঠি পাঠিয়েছেন দিনাজপুরের জেলা রেজিষ্টার।
জানা গেছে পার্বতীপুর উপজেলার রেজিষ্ট্রি অফিসের উপ-নিবন্ধক মোঃ খলিলুর রহমান গত শুক্রবার গভীর রাতে তার দেশের বাড়ী কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলা সদরে স্থানীয় পাবলিক ক্লাবে জুয়া খেলার সময় ৬ সঙ্গীসহ ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে হাতে নাতে ধরা পড়েন। এসময় আদালতের বিজ্ঞ ম্যাজিষ্ট্রেট মিজানুর রহমান সাব-রেজিষ্টার খলিলুর রহমান সহ আটক ৭ জুয়াড়ীর প্রত্যেককে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।  পার্বতীপুর রেজিষ্ট্রিরী অফিসের অফিস সহকারী ফয়জার রহমান জানান,- মোঃ খলিলুর রহমান ২০১৩ সালের ১৮ মার্চ উপ-নিবন্ধক হিসাবে পার্বতীপুরে যোগদান করেন। একই সঙ্গে তিনি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলায়ও উপ-নিবন্ধকের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছিলেন। কুড়িগ্রাম জেলা মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক জসিম উদ্দিন জানান- ওই দিন রাতে ভুরুংগামারী উপজেলার কাছাকাছি এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা শেষে কুড়িগ্রাম ফেরার সময় ভোর ৪ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাগেশ্বরী থানার উল্টো দিকে প্রায় ৫শ গজ দূরের পাবলিক ক্লাবে অভিযান চালিয়ে খলিলুর রহমানসহ ৭ জুয়াড়ীকে গ্রেফতার করা হয়।
দিনাজপুরের জেলা রেজিষ্ট্রার রনজিৎ কুমার সিং জানান- পার্বতীপুরের উপ-নিবন্ধক খলিলুর রহমানের কারাদন্ডের খবর পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য  ঢাকায় উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট সুপারিশ করে চিঠি দেয়া হয়েছে।
এদিকে উপ-নিবন্ধক না থাকায় জমিজমা কেনা বেচা ও বন্ধক রেজিষ্ট্রি বন্ধ থাকায় দিনাজপুরের পার্বতীপুর ও ঘোড়াঘাট উপজেলার ৩ শতাধিক দলিল লেখক ও তাদের সহকারী হঠাৎ কর্মহীন হয়ে পড়েছে বলে পার্বতীপুরের জৈষ্ঠ দলিল লেখক আব্দুল গফুর জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য