05_sharuk-joya২০তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে জয়া ও শাহরুখের সেলফিকলকাতার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে আট দিনব্যাপী কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। এটি এ আসরের ২০তম আয়োজন। উৎসবের উদ্বোধন করতে বলিউড থেকে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন বচ্চন পরিবার ও বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। এ উৎসবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন জয়া আহসান। আর সেখানেই দেখা হওয়ার পাশাপাশি অমিতাভ, শাহরুখ ও ইরফান খানদের সঙ্গে কুশলবিনিময় হয় বাংলাদেশি অভিনয়শিল্পী জয়া আহসানের।
কলকাতা থেকে মুঠোফোনে জয়া আহসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শেষে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাকে ডেকে মঞ্চের পেছনে নিয়ে অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান ও ইরফানসহ অনেকের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। তাঁরা সবাই বাংলাদেশের খোঁজখবর নেন। শুধু তা-ই নয়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে মমতা দি ও শাহরুখ খান তাঁদের পক্ষ থেকে সালাম ও শুভেচ্ছা পৌঁছে দেওয়ার জন্যও আমাকে অনুরোধ করেন। কথাবার্তার একপর্যায়ে আমি শাহরুখকে সেলফি তোলার কথা বলি। তাঁকে বলি, বাংলাদেশে তোমার অনেক ভক্ত রয়েছে, তাঁদের জন্যই আমি তোমার সঙ্গে সেলফি তুলতে চাই। সেও সানন্দে রাজি হলো। এরপর আরও কিছু কথা হয়। পরে আমরা সবাই একসঙ্গে রাতের খাবারও খেয়েছি। সেখানেও বিভিন্ন বিষয়ে কথাবার্তা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে প্রিয় অভিনেতা ইরফান খানের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলে।’
জয়া এও বলেন, ‘প্রথমদিকে ভেবেছিলাম এবারের কলকাতা উৎসবে যাওয়া হবে না। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চেয়েছিলেন আমি যেন কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের এবারে আসরে অংশ নেওয়াটা মিস না করি। তাঁর সম্মানার্থে না গিয়ে পারিনি। তিনি আমাকে যথেষ্ট পছন্দ করেন। আমাকে তিনি মিষ্টি মেয়ে বলে ডাকেন।’
২০তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিতে ৯ নভেম্বর ঢাকা ছাড়েন জয়া আহসান। সব ধরনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ১৪ নভেম্বর তাঁর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।
এবারের কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে আরও ছিলেন জয়া বচ্চন, অভিষেক বচ্চন, ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, তনুজা, মৌসুমী, অস্ট্রেলিয়ার চিত্রনির্মাতা পল ককস। টালিউড তারকাদের মধ্যে ছিলেন রণজিৎ মল্লিক, সুপ্রিয়া দেবী, গৌতম ঘোষ, সন্দ্বীপ রায়, দীপংকর দে, অমল পালেকর, সন্ধ্যা রায়, মুনমুন সেন, প্রসেনজিৎ, যিশু সেনগুপ্ত, দেব, কোয়েল মল্লিক, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য