রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে লাইভ করার সময় ৭১ ও আরটিভির রিপোর্টার ও ক্যামেরাম্যনকে মারধর এবং ক্যামেরা ও ডিভাইস ভাঙচুরের প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ মানববন্ধন ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেয়ার কর্মসূচি ঘোষণা করেছে রংপুরের সাংবাদিকরা। রোববার দুপুরে একাত্তর টেলিভিশনের ব্যুরো অফিসে প্রবীণ সাংবাদিক ও দৈনিক দাবানল সম্পাদক খন্দকার গোলাম মোস্তফা বাটুলের সভাপতিত্বে সাংবাদিকদের জরুরি বৈঠক শেষে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। বৈঠক শেষে বর্ষিয়ান সাংবাদিক খন্দকার গোলাম মোস্তফা বাটুল নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে সোমবার বিকেলের মধ্যে ক্যামেরা এবং লাইভ ডিভাইস ফেরত অথবা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

মঙ্গলবার অভিযুক্ত শিশু ওয়ার্ডের বিভাগীয় প্রধান, রেজিস্টারকে অপসারণ এবং ইন্টার্নি চিকিৎসকদের সনদ দেয়া বন্ধসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে ডিসির মাধ্যমে দাবি আদায়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং এসপির মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেয়া হবে। কর্মসূচির পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও স্মারকলিপিতে সাংবাদিকদের কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা এবং মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালগুলোতে তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করার দাবি জানানো হবে। দাবি না মানলে স্মারকলিপি দেয়ার পর ঢাকাসহ সারাদেশের সমস্ত সাংবাদিক এবং সাংবাদিক সংগঠনকে একত্রিত করে পরবর্ত বৃহত্তর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে জানান এই প্রবীণ সাংবাদিক। তিনি মঙ্গলবারের কর্মসূচিতে রংপুর মহানগরী ছাড়াও ৮ উপজেলায় কর্মরত সকল সাংবাদিক অংশ নেয়ার আহ্বান জানান।

জরুরি সভায় বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি রশিদ বাবু, সাবেক সেক্রেটারি মাহবুবুর রহমান হাবু, রিপোর্টার্র্র্স ক্লাবের সভাপতি সালেকুজ্জামান সালেক, সেক্রেটারি মোজাফফর হোসেন, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সেক্রেটারি লিয়াকত আলী বাদল, এটিএন বাংলার মাহবুবুল ইসলাম, বাংলা ভিশনের জয়নাল আবেদীন, রংপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সেক্রেটারি সরকার মাজহারুল মান্নান, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার জেলা সভাপতি আবু তালেব, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম সম্পাদক জুয়েল আহমদ, প্রচার সম্পাদক রেজাউল ইসলাম বাবু, রিপোর্টার্র্র্স ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক শাহ বায়েজিদ আহম্মদ, কোষাধ্যক্ষ শফিউল করিম শফিক, সাহিত্য সাংস্কৃতিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক, চ্যানেল নাইনের স্টাফ রিপোর্টার মানিক সরকার মানিক,ম দৈনিক রংপুর চিত্রের নির্বাহী সম্পাদক সুশান্ত ভৌমিক, বাংলা নিউজের রিপোর্টার সাজ্জাদ হোসেন বাপ্পী, মানব জমিন রিপোর্টার জাভেদ ইকবাল প্রমুখ। বৈঠকে শতাধিক সাংবাদিক অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, শনিবার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে লাইভ প্রতিবেদন করার সময় ৭১ টেলিভিশনের রংপুর প্রধান শাহ বায়োজিদ আহমেদ, আরটিভির রিপোর্টার জাহাঙ্গীর আলম বাদল ও তাদের দুই ক্যামেরাম্যানের ওপর হামলা চালিয়ে ব্যাপক মারধোর এবং ক্যামেরা, লাইভ ডিভাইস, বুম, ট্রাইপড ভাংচুর ও ছিনিয়ে নেয়। রোববার সকালে বুম ও ট্রাইপড ফিরিয়ে দিলেও লাইভ ডিভাইস ও ক্যামেরা ফিরিয়ে দেয়নি। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে রংপুরের সাংবাদিক সমাজ। রিপোর্টার্র্র্স ক্লাবের সেক্রেটারি মোজাফফর হোসেন জানান, রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সাংবাদিকরা কোনোভাবেই আর নিরাপদ নয়। একারণে সেখানে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করনের জন্যই আমাদের আন্দোলন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সেক্রেটারি লিয়াকত আলী বাদল বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যদি এ ব্যপারে যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরবো না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য