Modhopara Parbatipurমোঃ মিলন পারভেজ, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতাঃ দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে দেশের একমাত্র উৎপাদনশীল দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে তৃতীয় শিফট চালুর মাধ্যমে পূর্ণমাত্রায় পাথর উৎপাদন শুরু হয়েছে। গত শনিবার সকাল থেকে তিন শিফটে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করা হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যে দিন প্রতি এ হার ৪ হাজার মেট্রিক টনে উন্নীত হবে। এর আগে গত শুক্রবার সকালে তৃতীয় শিফট চালুর মাধ্যমে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) উৎপাদনে যায়। গত ৭ বছর ধরে খনিটি পরিচালনা করেছে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলা। যেখানে প্রতিদিন এক শিফটে গড়ে ১ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করা হতো। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি খনি পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের ৮ মাসের মাথায় পাথর উত্তোলন ৪ গুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছে।

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (এমজিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আবুল ফজল মো. নাজমুল আহসান হায়দার বলেন, ৭ বছর ধরে খনিটি পরিচালনা করে আমরা যেখানে প্রতিদিন এক শিফটের বেশি চালু করতে পারিনি। সেখানে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তিন শিফট চালু করে পূর্ণমাত্রায় উৎপাদন শুরু করেছে। বর্তমানে আগের চেয়ে তিন গুন উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে যাহা মধ্যপাড়া খনির জন্য এটি একটি মাইলফলক।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০৭ সালের ২৫ মে দিনাজপুরের  পার্বতীপুর উপজেলায় অবস্থিত মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি বাণিজ্যিক উৎপাদনে যায়। উৎপাদন শুরুর পর থেকে নানা প্রতিকূলতার কারণে পেট্রোবাংলা প্রতিদিন তিন শিফটে ৫হাজার মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে এক শিফটে গড়ে ১হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করে আসছিল। এভাবে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত ৬ বছরে খনিটি লোকসান দিয়েছে প্রায় ৯৮ কোটি টাকা। এ অবস্থায় ২০১৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর ১হাজার ৪০০ কোটি টাকায় ৬ বছরের জন্য খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয় বেলারুশের জেএসসি ট্রেস্ট সকটোসট্রয় (JSC Trest Soktostroy) ও দেশীয় প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া করপোরেশন লিমিটেডকে (Germania Corporetion Ltd.) নিয়ে গঠিত প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়ামকে (জিটিসি) (Germania Trest Consortium-GTC) জিটিসি চলতি বছরের ২০ফেব্র“য়ারি খনি পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করে এবং ২৪ ফেব্র“য়ারি উৎপাদন শুরু করে। প্রতিষ্ঠানটি প্রথমে এক শিফটে পাথর উৎপাদন শুরু করে এবং ১৭ মে থেকে দ্বিতীয় শিফট চালুর মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় ২ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করে আসছিল।

এরই ধারাবাহিকতায় মাত্র আট মাসের মধ্যে জিটিসি গত শুক্রবার (১০ অক্টোবর/১৪) থেকে তৃতীয় শিফট চালু করে। প্রথম দিনে তিন শিফটে (গত শুক্রবার সকাল ৭টা থেকে আজ রবিবার বিকেল পর্যন্ত) উত্তোলন করা হয় প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন পাথর। ক্রমান্নয়ে তা ৪ হাজারে উন্নীত করা হবে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, এখন থেকে প্রতিদিন সকাল ৭টা-বিকেল ৩টা প্রথম শিফট, বিকেল ৩টা-রাত ১১টা দ্বিতীয় শিফট এবং রাত ১১টা-সকাল ৭টা পর্যন্ত তৃতীয় শিফট পরিচালিত হবে। জিটিসি ৪৯০ জন শ্রমিক দিয়ে তিনটি শিফট পরিচালনার মাধ্যমে সর্বোচ্চ মাত্রায় পাথর উত্তোলন শুরু করেছে। অথচ জিটিসি দায়িত্ব গ্রহণের আগে পেট্রোবাংলা ৩০৮ জন শ্রমিক দিয়ে এক শিফট পরিচালনা করে তৃতীয় শিফট চালুর মাধ্যমে পূূর্ণমাত্রায় উৎপাদন শুরু তিন দিন উত্তোলন করতো গড়ে এক হাজার মেট্রিক টন পাথর। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসির প্রতিনিধি ও জার্মানিয়া করপোরেশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান ডক্টর সিরাজুল ইসলাম কাজী মধ্যপাড়া শিলা খনিকে দেশের মডেল খনি হিসেবে গড়ে তোলা এবং এটিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার লক্ষ্যে বেলারুশের একদল দক্ষ খনি বিশেষজ্ঞ দ্বারা খনিটি পরিচালনা করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য