Birol Thanaরতন সিং, দিনাজপুর থেকে ॥ দিনাজপুর বিরল উপজেলায় এক গৃহ বধূকে ধর্ষনের ঘটনা কৌশলে ধামা চাপা দেয়া হয়েছে। প্রায় ২০ ঘন্টা অতিবাহিত হয়ার পর ধর্ষক এবং ধর্ষিতাকে কোন মামলা না করে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

অভিযোগে প্রকাশ, গত ৮ই অক্টোবর রাত ৮টার দিকে বিরল উপজেলার রাণীপুকুর ইউপির বরানগর গ্রামে আব্দুল ছালামের পুত্র মহিদুর ১৮ একই ইউপির হালজায় গ্রামের এক গৃহ বধু (২০) এর ঘরে প্রবেশ করে তাকে ধর্ষন করে। ধর্ষিতার চিৎকারে তার স্বামীসহ এলাকার লোকজন ছুটে এসে ধর্ষক মহিদুরকে আটক করে। পরদিন ৯ অক্টোবর বিকেল ৪টায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এক শালিশ বৈঠকে বসে এক লক্ষ টাকার বিনিময়ে বিষয়টি সুরাহা করার চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে এসআই আশরাফুলেরর নেতৃত্বে বিরল থানা পুলিশ ধর্ষিতা এবাং ধর্ষক উভয়কে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

সেখানে ২০ ঘন্টা আটক রাখার পর ধর্ষিতাকে ৫২ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে বিষয়টি সুরাহা করে দেয় পুলিশ। কোন রকম মামলা দায়ের ছাড়াই ছেড়ে দেওয়া হয় ধর্ষক মহিদুর (১৮) কে। এ ব্যাপারে বিরল থানার ওসির সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি বলেন, ধর্ষিতা কিংবা তার অভিভাবক এ ব্যাপারে কোন মামলা করতে রাজী না হওয়ায় মামলা দায়ের করা সম্ভব হয়নি। ধর্ষিতার স্বামী তুথার চন্দ্র ধর্ষিতাকে তালাক দেওয়ার ঘোষনা দেয়। এরপর এলাকার জনপ্রতিনিধিরা তার কাছ থেকে ৭০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। ধর্ষিতাকে রাঙ্গন গ্রামে তার পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য