05_pakistan--আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর ওয়াজিরিস্তানের জার্ব-ই-আজব এলাকায় জুন মাসে চালানো এক অভিযানে অন্ততপক্ষে ৯১০ জন জঙ্গি ও ৮২ জন পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছেন। বুধবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী এ খবর জানিয়েছে। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ওই অভিযানকালে ২৭টি বিস্ফোরক ও অস্ত্র তৈরির কারখানা ধ্বংস করা হয়।

বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ, যোগাযোগ যন্ত্রপাতি এবং জঙ্গিদের ব্যবহৃত অন্যান্য কৌশলগত স্থাপনা ধ্বংস করা হয়েছে। এতে সম্মিলিত বাহিনী হিসেবে তাদের হামলা চালানোর ক্ষমতা উৎপাটন করা হয়েছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী উত্তর ওয়াজিরিস্তানের ওই অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানানো হয়েছে। অভিযানকালে জঙ্গিদের শক্তিকেন্দ্র বলে পরিচিত মিরানশাহ, মিরালি, দাত্তাখেল, বোয়া এবং দেগান শহর সেনাবাহিনীর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে নেয়া হয়েছে বলে বিবৃতিতে বলা হয়।

এ সময় ৮৮ কিলোমিটার দীর্ঘ খাজুরি-মিরালি-মিরানশাহ-দাত্তাখেল সড়ক এবং ঘারিয়ম-ঝালার সড়ক জঙ্গিমুক্ত করা হয় বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী। এই অভিযানের সঙ্গে সমন্বয় রেখে দেশব্যাপী চালানো গোয়েন্দা নেতৃত্বাধীন ২২৭৪টি সমন্বিত অভিযানে আরো ৪২ জঙ্গি নিহত ও ১১৪ জন “চরমপন্থী সন্ত্রাসী” আটক হয়েছেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

অভিযানের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ৮২ জন পাকিস্তানি সেনা নিহত ও ২৬৯ জন আহত হয়েছেন বলেও জানানো হয়।

করাচি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জঙ্গিদের দুঃসাহসিক এক হামলা ও তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তানের (টিটিপি) সঙ্গে দেশটির সরকারের শান্তি আলোচনা ভেঙে যাওয়ার পর ১৫ জুন থেকে জার্ব-ই-আজবে জঙ্গিবিরোধী অভিযান শুরু করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। জঙ্গিবিরোধী অভিযান চলাকালে ওই এলাকার প্রায় দশলাখ মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গিয়ে শরণার্থী শিবিরগুলোতে আশ্রয় নেয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য