11 IRAQইরাকি শহর আমেরলিতে বিমান হামলা এবং হেলিকপ্টার থেকে খাদ্য ও অন্যান্য সামগ্রী পতন বজায় রেখেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। কর্তৃপক্ষদের একজন জানান, সেখানে একটি সংখ্যালঘু সম্প্রদায় হুমকির সম্মূখীন। আইএসআইএস দখলকৃত আমেরলি শহরে অনেক ইরাকের অনেক শিয়ার আবাস। গত শনিবার সন্ধ্যায় পেন্টাগনের গণমাধ্যম সচিব রিয়ার এডমিরাল জন কিরবি জানান, সেখানে আটকে থাকা মানুষদের সাহায্যার্থে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হেলিকপ্টার এবং বিমান থেকে ত্রাণ ফেলছে। অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্যও এই ত্রাণ পতনে অংশ নিয়েছে। কিরবি বলেন, মার্কিন সেনারা নির্ধারিত লক্ষ্যেই আইএসআইএস এর ওপর হামলা চালাচ্ছে আটকে পড়া মানুষদের রক্ষা করতে। গত জুনের মাঝামাঝি সময় বাকুবা থেকে ৭০ মাইল উত্তরের শহর আমেরলি দখল করে নেয় আইএসআইএস। তখন থেকেই এখানের প্রায় ২০ হাজার অধিবাসী পানিশূণ্য অবস্থায় আছে। তারা আশেপাশের কূপ থেকে নিত্যদিনের ব্যবহার্য পানির অভাব পূরণ করতে বাধ্য হচ্ছে। গত সপ্তাহে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক রাষ্ট্রদূত নাভি পিল্লাই বলেন, সেখানে খাদ্য ও পানির অভাবে সবার জীবন ওষ্ঠাগত। তারওপর চিকিৎসা সেবা থেকেও তারা বঞ্চিত। আমেরলিতে বড় ধরণের ধ্বংসজজ্ঞ আসন্ন। ইরাকে শিয়া এবং সুন্নি উভয় সম্প্রদায়ের তুর্কি আছে, যারা ইরাকি এবং তুর্কি- উভয় সংস্কৃতি মেনে চলে। ইরাকের মোট জনসংখ্যার ৩ শতাংশ এই তুকির্রা। ২০০৮ সালে এক ট্রাক-বোম বিস্ফোরণে আমেরলিতে কমপক্ষে ১শ’ মানুষ নিহত হয়। এই হামলাকে মনে করা হয়, ইরাক যুদ্ধ চলাকালে সবচেয়ে ভয়ংকর একক হামলা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য