07_Dutchআন্তর্জাতিক ডেস্ক: নেদারল্যান্ডসের রাজা উইলেম অ্যালেক্সান্ডারের অবকাশকালীন একটি বাড়ির দেয়াল তৈরিতে সরকারি তহবিল থেকে প্রায় ৫ লাখ ইউরো খরচের কারণে গণমাধ্যমের সমালোচনার মুখে পড়েছে দেশটির রাজতন্ত্র। গ্রিসের সমুদ্র সৈকতের কাছে ওই বাড়ির নিরাপত্তার জন্য জমি নিতেই ওই টাকা খরচ করা হয়। ওই জমির স্থানীয় বাজারদর মাত্র ৩৫ হাজার ইউরো বলে একটি ডাচ সংবাদ মাধ্যমের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে রয়টার্স। রাণী বিয়াট্রিক্স সিংহাসন ছাড়ার পর ২০১৩ সালে রাজা হন উইলেম অ্যালেক্সান্ডার। নতুন রাজা সিংহাসনে আরোহনের এক বছর পার হলেও এরমাঝে ডাচ রাজতন্ত্রের জনপ্রিয়তা বেড়েছে। তবে এ ঘটনায় সমালোচকরা বলছেন, দেশ যখন অর্থনৈতিক মন্দা কাটানোর চেষ্টা করছে তখন রাজার অবকাশকালীন বাড়ির দেয়াল বানাতে এ অর্থ খরচ একটু বেশিই হয়েছে। জনগণের ট্যাক্সের টাকা এ ধরনের কাজে ব্যয় করায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো। বেশ কয়েকটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যম “ডাচ রাষ্ট্রের প্রতারণা” বা “দেয়াল তৈরিতে অর্ধ মিলিয়ন খরচ ডাচ রাষ্ট্রের” শিরোনামে সংবাদ করেছে। একটি দেয়াল তৈরিতে এত টাকা খরচ করার ব্যাপারে দেশটির পার্লামেন্টে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে বলে রয়টার্সকে জানিয়েছেন আলেক্সান্ডার পেচটোল্ড নামে বিরোধী দলের এক আইনপ্রণেতা। অস্বাভাবিক ব্যয়ের অভিযোগে এই গ্রীষ্মেই দ্বিতীয়বারের মতো সংবাদমাধ্যমে শিরোনাম হল ডাচ রাজ পরিবার। এরআগে রাজ পরিবারের একটি প্রাসাদ সংস্কারে ৯ লাখ ইউরো খরচের জন্য জুন মাসে দেশটির পার্লামেন্টে প্রশ্ন ওঠে। হাউজ অব অরেঞ্জ নামে পরিচিত নেদারল্যান্ডের এ রাজতন্ত্র ২০১৩ সালে ৩৯.৯ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে, যা ইউরোপের রাজতন্দ্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি। দেয়াল তৈরির এ খরচের ব্যাপারেও বিস্তারিত প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে তারা। “প্রয়োজন মনে করলে নিরাপত্তা প্রশ্নে গাছ লাগানো, দেয়াল নির্মাণ ও যে কোন ধরনের নিরাপত্তা স্থাপনা বানানোসহ যে কোন ধরনের পদক্ষেপ আইন দ্বারা অনুমোদন করার অধিকার ডাচ রাষ্ট্রের রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য