আনোয়ার হোসেন, রাণীশংকৈল, ঠাকুরগাও :: দূর্ণীতি দমন কমিশন (দূদক) ঠাকুরগাওয়ের সাবেক জেলা জজ রুহুল আমিন খন্দকারের বিরুদ্ধে ১২ জন কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম দূর্ণীতির অনুসন্ধান শুরু করেছে। দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা সহকারী পরিচালক সমর কুমার ঝা ইতোমধ্যে ঠাকুরগাও জজ আদালতে বিভিন্ন কর্মকর্তা কর্মচারীদের জবানবন্দী গ্রহণ করেছেন। তৎকালীন নিয়োগপ্রাপ্তদের কয়েকজনের জবানবন্দী নেওয়া হলেও বাকি নিয়োগপ্রাপ্তদের জবানবন্দী নেয়ার কাজ ১২ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত চলবে। ২০০৮ সালে রুহুল আমিন খন্দকার ঠাকুরগাও জেলা জজের দায়িত্ত্বে থাকাকালিন সময়ে মুখ্য বিচারিক এমএলএসএস ষ্টেনোটাইপিষ্ট সহ ১২টি পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। উক্ত নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পূরন না করায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মানব বন্ধন করেন। নিয়োগ বানিজ্যে জেলা জজের বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠে। সাবেক মূখ্য বিচারিক হাকিম আশিকুর রহমান জেলা জজ রুহুল আমিন খন্দকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে রেজিষ্ট্রারের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়। অভিযোগ পত্র দুদকের কাছেও পাঠান। প্রেক্ষিতে দুদকের তদন্তকাজে অভিযোগের সত্যতা প্রমান পাওয়া গেছে বলে জানা যায়। সাবেক জেলা জজ রুহুল আমিন খন্দকার বর্তমানে মন্ত্রণালয়ে ওএসডি পদে বহাল আছেন। দুধকের সহকারী পরিচালক সমর কুমার ঝা জানান, জেলা জজের সাবেক কর্মচারী ছবি দত্ত্ বর্তমানে বান্দরবন জজ আদালতে প্রধান তুলনাকারীর  জবানবন্দী নেয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য