ফুলবাড়ীতে জমে উঠেছে ঈদ বাজারদিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে রমজানের শেষ সপ্তাহ এসে জমে উঠেছে, সাদ ও সাধ্যর ঈদ মার্কেটগুলি। অভিযাত বিপনী গুলির পাশপাশি, নিম্ন আয়ের মানুষের ছুটছেন ফুটপথে গড়ে উঠা কম দামের কাপড়ের দোকানে।

ঈদমানেই নতুন কাপড়, ঈদে নতুন কাপড় পরিধান না করলে, ঈদের খুশি যেন ম্লান হয়ে যায়। এটি যেন বাঙ্গালীর চিরচেনা রেওয়াজ। এই বেওয়াজকে ধারন করে, ঈদ আসলেই নতুন কাপড় কেনার ধুম পড়ে যায় প্রতিটি মুসলিম বাঙ্গালীর ঘরে ঘরে । কিন্তু এই রেওয়াজের সাথে অথের কারর্র্নে ইচ্ছা থাকলেও, সব পোষাক সকলে কিনতে পারে না। এজন্য উচ্চবৃত্তের লোকেরা যখন অভিযান বিপনী গুলিতে ভিড় জমায়, তখন নিম্ন আয়ের মানুষেরা ছুটছেন ফুুটপথের কম দামের দোকান গুলিতে।

গতকাল বৃহস্পতিবার ফুলবাড়ী পৌর শহর ঘুরে দেখা যায়, কাপড় পট্টির অভিযাত বিপনী গুলিতে উচ্চ বৃত্ত গ্রাহকের উপচেপড়া ভিড় জমেছে। দোকানে বসার জায়গা নেই। দাঁড়ীয়ে দাঁড়ীয়ে গ্রাহকেরা খরিদ করছে তাদের পছন্দের পোষাক, ক্রেতাদের অভিযোগ প্রতিটি কাপড়ের মুল্য, গত বছরের তুলনায় অনেক বেশি। তবে কাপড় ব্যবসায়ী নেকসাস ফেশ্যানের মালিক শিবলি সাদিক, জানায় কাপড়ের পাইকারী বাজারেই কাপড়ের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার বেশি দামের বিক্রি করতে হচ্ছে। একই কথা বলেন কেয়া ফেশ্যানের মালিক মাহাবুর রহমান।

এদিকে ভূমি অফিস সড়কের দু’পাশ দিয়ে গড়ে উঠিছে ফুটপথের দোকান ও কমদামী কাপড়ের দোকান। এখানেও উপছেপড়া ভিড়। ক্রেতার জানায় অভিযান বিপনীগুলি অপেক্ষা এখানে অনেক কমদামের কাপড় পাওয়ায় যায়। তাই নিম্ন আয়ের লোকেরা এই মার্কেট থেকে সেরে নিচ্ছে তাদের পছন্দের কেনাকাটা। বাজার ঘুরে দেখা যায় তৈরী পোষাকের দোকানের পাশাপাশি সু-হাইজ গুলিতেও ব্যাপক ভিড় জমেছে তবে ক্রেতারা একদরের দোকান গুলিতেই বেশি যাচ্ছে । সৌখিন সু-হাউজের মালিক পৌর মেয়র মানিক সরকার জানায় তুলনা মূলক গত বছরের তুলুনায় এই বছর পাইকারী বাজারে জুতার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আশানুরুপ বেচা-কেনা হচ্ছে না। এছাড়া কসমেটিকসসহ অনান্য দোকানেও ভিড় জমেছে। সব মিলিয়ে রমজানের শেষ সময়ে এসে জমে উঠেছে সাদ ও সাধ্যর ঈদ মার্কেট।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য