মালয়েশিয়ার বিমানের বেঁচে যাওয়া দম্পতিআমস্টারডামের শিফল বিমানবন্দরে বিমানটিতে ওঠার কথা ছিল ব্রিটিশ দম্পতি ব্যারি ও আইজি সিমের। সেখানে তেল নিতে থামে এমএইচ-১৭। কুয়ালালামপুর যেতে মালয়েশিয়ার বিমান এমএইচ-১৭তে বুকিং দিয়েছিলেন তাঁরা। সঙ্গে ছিল তাঁদের একমাত্র সন্তান। এই দম্পতি বিমানে উঠতে গেলে কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করে জানায়, তাদের বিমানে আর কোনো আসন খালি নেই। তাঁরা যেন অন্য বিমানে যান। পরের অন্য একটি ফ্লাইটে তাঁরা মালয়েশিয়া যাওয়ার বন্দোবস্ত করেন। মালয়েশিয়ার এয়ারলাইনসই তাঁদের সহায়তা করে অন্য একটি বিমান ধরতে। এমএইচ-১৭ ওই দম্পতিকে রেখে উড়ে যাওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যেই বিধ্বস্ত হয়। নিহত হয় এর ২৯৮ জন আরোহীর সবাই। ঘটনাচক্রে বেঁচে যায় এই ব্রিটিশ দম্পতি ও তাঁদের শিশু সন্তান। শিফল বিমানবন্দরে বসেই তারা শোনে ওই দুঃসংবাদ। ঘটনার পরপরই সংবাদমাধ্যমকে স্কটল্যান্ডবাসী ব্যারি বলেন, খবরটা শুনে আমি অসুস্থ বোধ করছি। আমার তলপেট দিয়ে শিহরণ বয়ে গেছে। আমার হৃৎকম্পন বেড়ে গেছে। ব্যারির স্ত্রী বলেন, নিশ্চয়ই কেউ আমাদের লক্ষ্য করছিল আর বলছিল, তোমাদের ওই ফ্লাইটে ওঠা উচিত নয়। এই ব্রিটিশ দম্পতি বেঁচে গেলেও মালয়েশিয়ার বিমানটিতে ১০ জনের মতো ব্রিটিশ যাত্রী ছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য