পীরগঞ্জ(ঠাকুরগাও)প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁয়ের পীরগঞ্জ সরকারী কলেজে একাদশ শ্রেণীর ভর্তিকে কেন্দ্র করে কলেজ ছাত্রলীগের কতিপয় নেতাকর্মী ভর্তির সুযোগ না পাওয়া নিজেদের ছাত্রদের ভর্তির দাবীতে কলেজ অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ সহ শিক্ষকদের উপর হামলা, ভাংচুর, মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় কলেজ কতৃপক্ষ ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত করেছে।

২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তির জন্য দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড কতৃক প্রস্তুতকৃত মেধাতালিকায় স্থান পাওয়া ৮শ’ ২৬ জন শিক্ষার্থীর ভর্তি প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে ২৩-২৫ জুন শেষ হলে শুণ্য কিছু আসনে ২৮ জুন অপেক্ষমান তালিকা থেকে ভর্তি শুরু হলে কলেজ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ভর্তির সুযোগ না পাওয়া শিক্ষার্থীদের ভর্তির জন্য চাপ প্রয়োগ করলে কর্তৃপক্ষ ভর্তি স্থগিত করেন।

২০ দিন স্থগিত থাকার পর পূনরায় ভর্তির জন্য আজ ১৯ জুলাই ভর্তির নোটিশ দিয়ে ভর্তি শুরু হলে কলেজ ছাত্রলীগের কতিপয় নেতা কর্মী কলেজের উপাধ্যক্ষ্য মোসলেম আলীর উপর চড়াও হলে অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুর রহমান কয়েকজন শিক্ষককে নিয়ে সেখানে যান। এ সময় কতিপয় নেতা-কর্মী অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের লাঞ্চিত করে। এ সময় কতৃপক্ষ ভর্তি কার্যত্রুম বন্ধ করে দেন । কিছুক্ষন পরেই নেতা-কর্মীরা হামলা চালায় কলেজের বিজ্ঞান ভবন্।ে ইট পাটকেল নিক্ষেপ শেষে বারান্দায় থাকা উপাধ্যক্ষের ব্যব্হৃত ঠাকুরগাও-হ-০০-০০৯ নং মোটর সাইকেলে অগ্নি সংযোগ করে। সকাল থেকেই এসআই আবু তালেবের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সেখানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করে ।

এর একপর্যায়ে নেতাকর্মীরা  বিজ্ঞান ভবন থেকে আলমগীর সহ ২ জন পুলিশ সদস্যকে টেনে বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় বাধাঁ দিলে রিয়াজুল ইসলাম নামের একজন কনস্টেবলের পোশাক ছিড়ে ফেলে তারা। পরে থানার অফিসার ইনচার্জ মুরশিদুল করিম ইসতেশাম এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুর রহমান জানান, আমারা নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। এভাবে ভর্তি প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখা সম্ভবপর নয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল বলে কলেজ কতৃপক্ষ জানিয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য