Boro Dhanদিনাজপুরের কাহরোলে চলতি বোর মৌসুমে সরকারী বেধে দেওয়া মূল্যের চেয়ে হাট বাজারে ধান চালের মূল্য বেশি হওযায় কাহারোল খাদ্য গুদামে চাল সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হওয়া আশস্কা দেওয়া দিয়েছে।

বুরো ধান কাটা মাড়ায়ে শুরু থেকেই সরকারী মূল্য চেয়ে ধান চাউলের বাজার মূল্য কেজি প্রতি ২/১ টাকা বেশী। ধান, চাল সংগ্রহ অভিযানের শুরুতেই বেশীর ভাগ চালকল মালিক খাদ্য গুদামে চাল দেওয়ার চুক্তিপত্রর অনিহা প্রকাশ করেন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তৎপরতায় ১৩৯জন চালকল মালিকের মধ্যে ৭১ জন চালকল মালিক খাদ্য গুদামে চাল দেওয়ার জন্য চুক্তিবন্ধ হয়। এখানে চালকেনার লক্ষ্যে মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪হাজার ৪শত ৪৫মেঃ টন।

ইতিমধ্যে চাল সংগ্রহ করা হয়েছে ১ হাজার ৮২০ মেঃটন। চুক্তি মোতাবেক বাকী চাল গুলো দিচ্ছে চালকল মালিকরা। চাল সংগ্রহে সংগ্রহ অভিযানে কিছুটা সম্ভনা থাকলে ধান সংগ্রহে অভিযানে ভাটা পড়েছে। চলতি মৌসুমে খাদ্য গুদামে কোন ধান সংগ্রহ করা হয়নি।

সরকারী বিধি মোতাবেক সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে ধান সংগ্রহ করতে হবে। বাজারে কৃষকেরা সরকারী মূল্যের চেয়ে ধানের বেশি মূল্য পাওয়ায় খাদ্য গুদামে তারা ধান দিচ্ছে না। এখানে ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৭১ মেঃটন।

চলতি মৌসুমে ধানের কেজি বিশ টাকা ও চালের কেজি ৩১ টাকা নির্ধারণ করা হয়। বর্তমানে সরকারী এই নির্ধারিত মূল্যে ডিংগীয়ে বাজারে চালের কেজি ৩৪/৩৫ টাকা ও ধানের কেজি প্রায় ২১/২২ টাকা চলচ্ছে। চালকল ব্যবসায়ীরা জানান চুক্তিপত্রের কারণে লোকসান হলেও খাদ্য গুদামে চাউল দেওয়া হচ্ছে।

কাহারোল খাদ্য নিয়ন্ত্রক পরিমল কান্তি সরকার ও খাদ্য গুদামে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জিয়াউল হক শাহ্ জানান সরকারী মূল্যের চেয়ে বাজারে ধানের ধাম বেশি হওয়ায় ধান সংগ্রহ করা যায় নি। চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানোর জন্য মিল মালিকদের তাকিদ দেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য