Borodhanশাহ্ আলম শাহী,দিনাজপুর থেকেঃদিনাজপুরে স্বল্প মেয়াদী রোগ-বালাই মুক্ত ব্রি-৫৮ ধানের চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন কৃষক। এ ধান চাষ করে এক দিকে যেমন  কৃষক অধিক ফলন পেয়েছে,তেমনি এ ধান চাষে একই জমিতে অন্য ফসল উৎপাদনে সহায়তা হয়েছে কৃষকের। আশানুরূপ ফলন ঘরে তুলতে পেরে কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি। আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন তারা।
দিনাজপুরের সদর উপজেলার শশরা দক্ষিণ নগরের কৃষক জাকির হোসেনের মতো অনেক কৃষকই এবার প্রথমবারের মতো আবাদ করেছেন স্বল্প মেয়াদী রোগ-বালাই মুক্ত ব্রি-৫৮ ধান। পেয়েছেন আশাতীত ফলন।
এ জাতের ধান চাষ করে অনেক আগেই কৃষকরা ঘরে তুলেছেন ফসল। প্রচলিত জাতগুলোর চেয়ে প্রায় দ্বি-গুন ধান পেয়েছেন জানিয়েছেন কৃষক জাকির।
কৃষি অফিসার মতলুবুর রহমান  জানিয়েছেন, জেলায় এবার সাড়ে ৮’শ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে স্বল্প মেয়াদী রোগ-বালাই মুক্ত ব্রি-৫৮  ধান ।
এই ধান আবাদে সহায়তা করছে আন্তর্জাতিক ধান গবেষনা ইনষ্টিটিউট (ইরি) এবং চাষাবাদে কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করতে আর্থিক সহায়তা করছে  দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। ব্রি ধান-৫৮ নতুন জাতের ধান আবাদ দিনাজপুর অঞ্চলের কৃষকদের মাঝে বেশ সাড়া জাগিয়েছে।
এতে সেই জমিতে ৩টি ফসল আবাদ করতে পারছে কৃষক। দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আনোয়ারুল আলমও জানিয়েছেন এই ধানের সাফল্যের কথা । তিনি বলেছেন,প্রচলিত বোরো ধান আবাদ করতে যেখানে সময় লাগে ১৪০ থেকে ১৪৫ দিন। সেখানে এই ব্রি ধান-৫৮ আবাদ করতে সময় লাগছে ৯০ থেকে ১১০ দিন। ব্রি ৫৮ জাতের ধানের ফলন একর প্রতি শুকনা ধান ৯২ মেট্রিক টন পাওয়া যায়। যা অন্যান্য জাতের তুলনায় দ্বি-গুন ফলন। এ ধানের রোগ-বালাই কম।সেচ ও শ্রমের কম খরচ হয় এ  ধান চাষাবাদে।
কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করতে স্বল্প মেয়াদী রোগ-বালাই মুক্ত ব্রি-৫৮ ধানের প্রদর্শনী’র উপর কৃষকের মাঠ দিবস করাও হচ্ছে নিয়মিত।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য