বোদা(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ পঞ্চগড়ে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজাপ্রাপ্ত জহিরুল ইসলাম (৫৫) নামে এক আসামীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকালে ভারতীয় ফেনসিডিল ও গাঁজাসহ বিজিবি তাকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করে। রোববার গভীর রাতে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে সে মারা যায়। তবে নিহতের পরিবারের দাবি বিজিবির নির্যাতনে তার মুত্যু হয়েছে। খবর পেয়ে সকালে নিহতের স্বজনরা হাসপাতালে বিক্ষোভ করে। সদর উপজেলার গরীনাবাড়ি ইউনিয়নের সীমান্ত এলাকা গারিয়ানপাড়ার গরু ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম। গত ১৫ মার্চ বিজিবির সাথে সংঘর্ষের অভিযোগে তাদের দায়ের করা একটি মামলার আসামী ছিলেন তিনি। চলতি মাসের ৭ তারিখে আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হন জহিরুল। শনিবার সকালে বিজিবির মিস্ত্রিপাড়া বিওপির সদস্যরা তাকে আটক করে ফেনসিডিল ও গাঁজাসহ ভ্রাম্যমান আদালতে দেয়। আদালতের বিচারক ও নির্বাহী মেজিষ্ট্রেড উসমান গনি তাকে এক বছর ৮ মাস বিনাশ্রম কারদন্ড দেন। ওই দিন বিকালে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। পরদিন গভীর রাতে হাসপাতালে তিনি মারা যান। তবে নিহতের পরিবারের দাবি পূর্বের মামলার জের ধরে তাকে অমাবিকভাবে নির্যাতন করা হয়। নিহত জহিরুল ইসলামের স্ত্রী রেজিনা খাতুন দাবী করেছেন বিজিবির নির্যাতনে তার স্বামীর মুত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন নিহতের স্ত্রী জানান।  পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক  লে. কর্নেল মোহাম্মদ আরিফুল হক, জানান মাদকদ্রব্যসহ তাকে আটকের পর কোনরুপ নির্যাতন না করে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য