যৌতুক মামলায় বান্দরবন জেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার দিনাজপুর কারাগারে

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে যৌতুকের দাবীতে নির্যাতন করার অভিযোগ এনে স্ত্রীর করা মামলায় বান্দরবন জেলার ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিজাম উদ্দিনকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন বিচারক।

রোবিবার দুপুরে দিনাজপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সিনিয়র জেলা জজ শরিফ উদ্দিন আহমেদ এই আদেশ দেন।

আসামী নিজাম উদ্দিন লক্ষিপুর জেলার সদর উপজেলার শাহাপুর গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে। তিনি বান্দরবন জেলায় ভারপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কর্মরত আছেন।

মামরার বিবরণে জানা যায়, দিনাজপুর শহরের উপশহর ৫ নং ব্লকের মোঃ আজিজার রহমানের মেয়ে মৌসুমী আক্তারের সঙ্গে নিজাম উদ্দিন সঙ্গে গত ০৮/০৫/২০১৫ ইং তারিখে প্রস্তাবে ২লক্ষ ৫০ হাজার টাকা দেনমহরে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে নিজাম উদ্দিন বাড়ী বানানোর কথা বলে স্ত্রী মৌসুমীর কাছে ২০ লক্ষ টাকা দেনমহরের জন্য চাপ দিয়ে আসছিল।

এরই মধ্যে তাদের একটি প্রতিবন্ধি কন্যা সন্তান জন্মগ্রহন করেন। এরই মধ্যে দেড় লক্ষ টাকা যৌতুক বাবদ প্রদান করা হয়। বাদিনী নিজেও একজন চাকুরিজীবী। তিনিও সংসার চারানোর জন্য প্রতিমাসে বেতন থেকে ১০ হাজার টাকা স্বামীকে প্রদান করতেন।

গত ১০/১২/২০২১ ইং তারিখে বাদীনির মৌসুমী আক্তারের পিতার বাড়ীতে এসে নিজাম উদ্দিন বাকী সাড়ে ১৮ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করেন। তা দিতে অপারগত প্রকাশ করায় নিজাম উদ্দিন তার স্ত্রীকে নির্যাতন করে গুরুত্বর যখম করে পালিয়ে যান। মৌসুমি আক্তার দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসা নিয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

উক্ত মামলায় আসামী নিজাম উদ্দিন হাইকোট থেকে গত ২৫/০৪/২০২২ ইং তারিখে জামিন গ্রহণ করেন। গতকাল হাইকোটের জামিনের সময় সীমা শেষ হয়ে গেলে আসামী নিজাম উদ্দিন দিনাজপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সিনিয়র জেলা জজ শরিফ উদ্দিন আহমেদ এর আদালতে হাজির হয়ের জামিন প্রার্থনা করেন। বিচারক তার জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ প্রদান করেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী রমজান আলী খন্দকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।