পাক প্রধানমন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি এফআইএর

পাক প্রধানমন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি এফআইএর

আন্তর্জাতিক

কয়েকশো কোটি টাকার দুর্নীতিতে যুক্ত থাকার অভিযোগ পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও তার ছেলে সুলেমান শাহবাজকে গ্রেফতারের দাবি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এফআইএর। ছেলে সহ প্রধানমন্ত্রীকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে তদন্ত করতে চাইছে এই সংস্থা। আদালতে রিপোর্ট পেশ করে বিশেষ আবেদন জানানো হয়েছে তদন্তকারী সংস্থার পক্ষ থেকে।

ক্ষমতায় আসতেই বড় রকম কেলেঙ্কারির অভিযোগ পাক প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের বিরুদ্ধে। অভিযোগ উঠেছে, কয়েকশো কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি ও তার ছেলে সুলেমান শাহবাজ। তাই তাদেরকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে তদন্ত করতে চায় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এফআইএ। যে কারণে আদালতের দ্বারস্থ হলো এই সংস্থা।

তবে, শাহবাজ শরিফের দাবি, এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, এটি একটি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র।

গত ২০২০ সালে পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও তার ছেলে সুলেমান শাহবাজের বিরুদ্ধে আর্থিক কেলেঙ্কারির মামলা দায়ের করা হয়েছিল। যেখানে ২৮ টি ব্যাংক একাউন্টে প্রচুর টাকা রাখার অভিযোগ ওঠে। তারপর থেকেই এর তদন্ত চলছে। সম্প্রতি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার দাবি, প্রধানমন্ত্রী কয়েকশো কোটি টাকা নিয়েছেন। তাই তাঁদেরকে নিজেদের হেফাজতে রেখে তদন্ত করতে চায় সংস্থা।

গতকাল পাকিস্তানের বিশেষ আদালতে রিপোর্ট জমা দিয়েছে এফআইএ। এফআইএর আইনজীবীর দাবি, প্রধানমন্ত্রী ও তার ছেলের বিরুদ্ধে বিপুল আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ আছে। তাই তাদের গ্রেপ্তার করা প্রয়োজন। কারণ, তারা কেউই তদন্তে সহযোগিতা করেন নি।

তবে, প্রধানমন্ত্রীর দাবি, ১০ বছর ধরে তিনি যখন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, সেসময় তিনি কোনদিন বেতন পর্যন্ত নেন নি। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগকে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র বলে তিনি দাবি করেছেন তিনি।

তার আইনজীবীর বক্তব্য, ইতিপূর্বে একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী ও তার ছেলেকে। তাই তাদের কাছ থেকে কোনো তথ্যই পেতে বাকি নেই তদন্তকারী সংস্থার। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এফআইএকে ব্যঙ্গ করে তিনি বলেন, এফআইএ হলো ফলস অ্যাসারশন অফ দ্য এজেন্সি।