গাইবান্ধায় কলম চুরির অপবাদ দিয়ে ১১ শিক্ষার্থীকে পেটালেন শিক্ষক

গাইবান্ধায় কলম চুরির অপবাদ দিয়ে ১১ শিক্ষার্থীকে পেটালেন শিক্ষক

রংপুর

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার গলাকাটি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে কলম চুরির অপবাদ দিয়ে ১১ শিশু শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আনিছুর রহমানের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (২ জুন) সকালে এ ঘটনা ঘটে।

পরে বিষয়টি জানাজানি হলে অভিভাবকরা উত্তেজিত হয়ে বিদ্যালয় ঘেরাও করেন। পরে তারা রাস্তা অবরোধ করে ওই শিক্ষকের শাস্তি দাবি করেন। এ ঘটনায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির জরুরি সভায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত শিক্ষক আনিছুর রহমানের বাড়ি উপজেলার উদাখালী ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শহিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকালে সহকারী শিক্ষক আনিছুর রহমান ৮ম শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ ক্লাস নিচ্ছিলেন। এ সময় তিনি তার একটি কলম চুরির হয়েছে বলে অপবাদ দিয়ে শিক্ষার্থীদের বেধড়ক মারপিট করেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তারা বিক্ষুব্ধ হয়ে বিদ্যালয় ঘেরাও করেন। একপর্যায়ে বিদ্যালয়ের পাশের গাইবান্ধা-ফুলছড়ি রাস্তা অবরোধ করে অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের বিচার দাবি করেন।

খবর পেয়ে ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম সেলিম পারভেজ ঘটনাস্থলে এসে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচারের আশ্বাস দিয়ে উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করেন। পরে আনিছুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। শিক্ষক আনিছুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।