সৈয়দপুর প্লাজা ফ্রেন্ডস জুসবার থেকে কপোত কপোতি আটক

সৈয়দপুর প্লাজা ফ্রেন্ডস জুসবার থেকে কপোত কপোতি আটক

রংপুর

মোঃজাকির হোসেন নীলফামারীঃ নীলফামারীর সৈয়দপুর প্লাজা সুপার মার্কেটের রেস্টুরেন্ট ও ফাস্টফুড দোকানে প্রশাসন আবার অভিযান চালিয়েছে। মঙ্গলবার (৩১ মে) দুপুর ২ টায় সৈয়দপুর থানা কর্তৃক এ অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসময় ‘ফ্রেন্ডস জুসবার’ থেকে ৩ জোড়া কপোত-কপোতী কে আটক করে। পরে আটক ৩ ছেলেকে ভ্রাম্যমাণর আদালতে বিভিন্ন মেয়াদে দ্বন্ড প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু মেয়ে ৩ জনকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

থানা সূত্রে জানা যায়, এস আই সাহিদুর রহমানের নেতৃত্বে নিয়মিত টহলকালে প্লাজা মার্কেটের তৃতীয় তলায় ‘ফ্রেন্ডস জুসবার’ নামক ফাস্টফুড দোকানে আধো আলো আধো অন্ধকারাচ্ছন্ন পরিবেশে অপ্রীতিকর অবস্থায় কয়েকজন ছেলে-মেয়েকে দেখতে পায়। পুলিশ ওই দোকানে ঢোকামাত্রই মালিক জনৈক হোসেন পালিয়ে যায়।

এমতাবস্থায় ৩ জন ছেলে ও ৩ জন মেয়েকে আটক করে থানায় নেয়া হয়। পরে মেয়ে ৩ জনকে ছেড়ে দেয়া হয় এবং ছেলে ৩ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে নেয়া হয়। এরা হলো দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার পাকেরহাটের হামিদুল ইসলামের ছেলে আশরাফুল (১৯), একই এলাকার মো. সাহিদুল ইসলামের ছেলে মো. সোহান (২১) এবং দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার রোস্তম আলীর ছেলে মহিম ইসলাম (২৭)।

সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাহামুদুল হাসান আটক ছেলেদের মধ্যে আশরাফুল ও সোহান কে ৩ দিনের এবং মহিম ইসলামকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। পরে পুলিশ গ্রেফতারকৃত ৩ জনকে নীলফামারী জেলা কারাগারে প্রেরণ করেছে।

অন্যদিকে ‘ফ্রেন্ডস্ জুসবার’ মালিক পলাতক থাকায় প্রতিষ্ঠানটি সীলগালা করে বন্ধ করে দেয়া হয়। দোকান মালিক জনৈক সৈয়দপুর প্লাজা সুপার মার্কেটের সিকিউরিটি ইনচার্জ এবং সাথে জড়িত। সেই সুযোগে ও দাপটে তিনি এই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগে জনৈক নেতৃত্বেই অন্যান্য রেষ্টুরেন্ট ও ফাস্টফুড দোকানগুলো খাদ্য সামগ্রীর পরিবর্তে ‘টাইমপাস’ বাণিজ্যে মত্ত। তার প্রশ্রয়েই মাকেটে বিভিন্ন ধরনের ক্রাইম সংঘটিত হচ্ছে।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ( ওসি) আবুল হাসনাত খান ঘটনার সতত্যা নিশ্চিত করে বলেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের নীলফামারী জেলা কারাগারে প্রেরন করা হয়েছে। চাইনিজ রেস্টুরেন্টে অভিযান অব্যাহত থাকবে।